পরমাণু কেন্দ্র পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা অর্জন’ করতে রাশিয়া গেলেন আলীগ নেতা

8

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মকলেছুর রহমান মিন্টু এবং ইউএনও নাছরিন আক্তার (ডানে)। ছবি : সংগৃহীত
‘পরমাণু কেন্দ্র পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা অর্জন’ করতে রাশিয়া ভ্রমণে গিয়েছেন পাবনার ঈশ্বরদীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ (ইউএনও) স্থানীয় আওয়ামী লীগের ছয় নেতা। গত রোববার দিবাগত রাতে রাশিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন তাঁরা। ভ্রমণকারীদের একজন জানিয়েছেন, ভ্রমণব্যয় বহন করছে রাশিয়ার সরকার নিয়ন্ত্রিত পরমাণু বিষয়ক সংস্থা রোসাটম নিউক্লিয়ার করপোরেশন!

জানা যায়, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রোসাটমের প্রকৌশল বিভাগ এএসই গ্রুপ অব কোম্পানির আমন্ত্রণে তাঁরা রাশিয়া সফর করছেন। তবে এই ভ্রমণ কতুটুকু সহায়ক হবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ওই ভ্রমণে গেলেন মোট আটজন। ইউএনওর সঙ্গে আছেন প্রকল্পের একজন কর্মকর্তাও।

গত ৩০ নভেম্বর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই কেন্দ্র নির্মাণে সহযোগিতা করছে রাশিয়ার সংস্থা রোসাটম।

রাশিয়া ভ্রমণে থাকা ব্যক্তিরা হচ্ছেন ঈশ্বরদী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মকলেছুর রহমান মিন্টু, ইউএনও নাছরিন আক্তার, রূপপুর প্রকল্পের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা নূর ই আলম, ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শ্রমিক নেতা মো. রশীদুল্লাহ, পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হবিবুল ইসলাম হব্বুল, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য সাইফুল আলম বাবু মণ্ডল, পাকশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হক এনাম বিশ্বাস এবং পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজা।

আগামী ৮ ডিসেম্বর এই প্রতিনিধিদল দেশে ফিরবেন বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে রোসাটমের জনসংযোগ প্রতিষ্ঠান ট্রিনিউন গ্রুপের প্রধান মো. ফরহাদ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তিনি বলেন, ‘তবে ভ্রমণের বিষয়টি রোসাটম সরাসরি তাদের জনসংযোগ বিভাগের মাধ্যমে সম্পন্ন করে থাকে।’

ওই প্রতিনিধিদলের সদস্য ঈশ্বরদী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মকলেছুর রহমান মিন্টু গত রোববার রাতে বিমানে ওঠার আগে জানান, তাঁরা রোসাটমের আমন্ত্রণে ‘পরমাণু কেন্দ্র পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা অর্জনে’ রাশিয়া যাচ্ছেন। তাঁদের সব খরচ রোসাটম কর্তৃপক্ষ বহন করবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের একজন প্রকৌশলী বলেন, ‘এই ভ্রমণ সম্পূর্ণ রাজনৈতিক। ভূমিমন্ত্রীর পছন্দের লোকদের সন্তুষ্ট রাখতে এই ভ্রমণ।যিনি ভ্রমণে গেছেন তিনি ভুমিমন্ত্রীর জামাতা। এটা কোনো কাজেই আসবে না।’