মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে মাদ্রাসাছাত্রকে হ’ত্যা: যুবলীগ নেতা গ্রে’প্তার

325

আশুলিয়ায় মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে এক মাদ্রাসাছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় যুবলীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আশুলিয়ার ভাদাইল এলাকার একটি ক্লাব থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম।

গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতার নাম আবুল হোসেন আপন (৪০)। তিনি আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়নের কন্ডা গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের ছেলে এবং থানা যুবলীগের সদস্য।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাতে লালমনিরহাট জেলার সদর থানার কাজী কলোনি গ্রামের মিছির আলীর ছেলে সবুজ হোসেন (১৪) ও তার বন্ধু জাহিদুল ইসলাম (১৫) রাগ করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আশুলিয়ায় বোনের বাড়ির উদ্দেশ্যে আসে। কিন্তু বাসা খুঁজে না পেয়ে রাতে তারা শ্রীপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অপেক্ষা করতে থাকে। পরে স্থানীয় একটি চক্র তাদের অপহরণ করে পরিবারের সদস্যদের কাছে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে মারধর করতে থাকে। একপর্যায়ে ৫ম শ্রেণি পড়ুয়া মাদ্রাসা ছাত্র সবুজ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে তাদের একটি ভ্যান গাড়িতে করে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয় অপহরণকারীরা।

পুলিশ আরো জানায়, রাস্তায় সবুজ মারা গেলে ওই ভ্যান চালক গাড়িসহ তাদের ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মরদেহটি উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা ১৩ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার রাতে আশুলিয়ার একটি ক্লাব থেকে যুবলীগ নেতা আবুল হোসেন আপনকে গ্রেপ্তার করেন আশুলিয়া থানার এসআই সুদীপ কুমার গোপ।

স্থানীয়রা জানায়, গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতা আবুল হোসেন আপন, তার দুই ভাই জাকির মন্ডল ও বাবুলের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসীরা। তাদের নামে আশুলিয়া ও আশপাশের বিভিন্ন থানায় পুলিশ সদস্যকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা, গুলি করে মানুষ হত্যা, চাঁদাবাজি, নির্যাতনসহ এক ডজন মামলা রয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন শাখা সড়কে চলাচলকারী যানবাহন থেকে চাঁদাবাজিসহ সব ধরনের অপকর্ম জাকির বাহিনীর লোকজন পরিচালনা করে থাকে। কিন্তু তারা প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতেও সাহস পায় না। স্থানীয় হিন্দু পরিবারের নারী সদস্যদের ওপর নির্যাতনেরও অভিযোগ রয়েছে এই বাহিনীর অপর সদস্যে আকিজুর মন্ডল ও নাজমুলের বিরুদ্ধে ।

আশুলিয়া থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মঈনুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, আবুল হোসেন আমাদের থানা যুবলীগের সক্রিয় সদস্য। মাদ্রাসাছাত্রকে পিটিয়ে হত্যাকারীর মোবাইল কল লিস্টের সূত্র ধরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে বলে জানতে পেরেছি।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুদীপ কুমার গোপ বলেন, মুক্তিপণের দাবিতে সবুজ নামের এক মাদ্রাসাছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় আবুল হোসেন আপনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের ধরতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান অব্যাহত আছে।