পানি মনে করে এসিডের বোতল দেয়া হয় শিশুকে

3

মায়ের সাথে স্বর্ণের দোকানে গিয়ে পানি খেতে চেয়েছিল ৩ বছরের শিশু জ্যোতি মারমা। দোকানি পানি মনে করে এসিডের বোতল দিয়ে দেয় শিশুটিকে। আর পানি মনে করে এসিড খেয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে জ্যোতি।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বান্দরবান শহরের উজানী পাড়া এলাকার জগন্নাথ জুয়েলার্সের দোকানে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর দোকানের মালিক রতন ধর পালিয়ে গেলেও পুলিশ কর্মচারী সাইমন ত্রিপুরাকে আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সন্ধ্যায় সুস্মিতা চাকমা তার ৩ বছরের মেয়ে জ্যোতিকে নিয়ে স্বর্ণ কেনার জন্য শহরের উজানী পাড়াস্থ জগন্নাথ জুয়েলার্সে যায়। সেখানে শিশু জ্যোতি পানি খেতে চাইলে দোকানি পানির বোতল মনে করে এসিডের বোতল দিয়ে দেয় শিশুটিকে। পরে দ্রুত তাকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শিশু জ্যোতির আত্মীয় উমেনু মারমা জানান, বেশ কিছুদিন আগে জ্যোতির মা সুস্মিতা ওই দোকানে একটি চেইন বানাতে দেয়। সোমবার সন্ধ্যায় চেইনটি নেয়ার জন্য দোকানে যায়। সেখানে শিশু জ্যোতি পানি খাওয়ার ইচ্ছা জানালে দোকানের মালিক রতনের কথা ধরে কর্মচারী এসিডের বোতলটি শিশুর হাতে দিয়ে দেয়। পানি মনে করে নাইট্রিক এসিড খেয়ে সেখানেই জ্বলে মারা যায় শিশুটি। এ ঘটনায় উজানী পাড়া এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম সরওয়ার জানান, দোকানের মালিক রতন ধরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে।