দৃষ্টি প্রতিবন্ধী কোরআন শিক্ষার্থীর এক বছরের দায়িত্ব নিলেন ইগলুর সিইও

44

গাজীপুরের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছোট্ট কিশোর আমিনুল। পরিবারের আর্থিক অনটন দৃষ্টির সাথে সাথে কেড়ে নিয়েছে সুন্দর শৈশবও। পড়াশোনার সাধ থাকলেও সাধ্য কখনোই ছিলো না। এমনই এক কিশোরের জীবনে আশার আশো জ্বালালেন স্বনামধন্য আইসক্রিম ব্র্যান্ড ইগলুর গ্রুপ সিইও জিএম কামরুল হাসান ।

মঙ্গলবার যমুনা টেলিভিশন ও ইগলুর ফেসবুক পেইজে লাভ গুরু খ্যাত এহতেশামের সঞ্চালনায় “তুমি চাইলেই হাসবে দেশ” শীর্ষক ক্যাম্পেইন লাইভ অনুষ্ঠানে আমিনুলের এক বছরের খরচ বহনের অঙ্গীকার করেন জিএম কামরুল হাসান।

অনুষ্ঠানটি শুরু হয় আব্দুল মোনেম গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা সদ্য প্রয়াত জনাব আব্দুল মোনেমকে স্মরণ করার মধ্যে দিয়ে। এ সময় তার জীবনী নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্র দর্শকের সামনে তুলে ধরা হয়। ইগলুর গ্রুপ সিইও কামরুল হাসান আব্দুল মোনেম সাহেবকে পিতৃতুল্য উল্লেখ করে তার জীবন ও কর্মের উপর আলোকপাত করেন ও দেশবাসীর কাছ থেকে দোয়া কামনা করেন।

এরপরই দর্শকের সামনে আনা হয় আমিনুলকে। বর্তমানে আলামিন রাশেদ নামের এক ব্যক্তির তত্ত্বাবধানে তারই প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসায় হাফেজি পড়ছেন আমিনুল। আলামিন রাশেদ নিজেও একজন প্রতিবন্ধী হাফেজ এবং সমাজের এরকম আরো অনেক ছাত্রকেই তিনি বিনামূল্যে কোরআন শিক্ষা দিয়ে থাকেন। ইগলুর গ্রুপ সিইও জিএম কামরুল হাসান সরাসরি দর্শকের সামনে আমিনুলের সাথে কথা বলে তার এক বছরের সমস্ত ব্যয়ভারের দায়িত্ব নেন। এ লক্ষ্যে তিনি নিজের বেতন থেকে আমিনুলের এক বছরের খরচের সমপরিমাণ ৬০ হাজার টাকা আলামিন রাশেদের হাতে পৌঁছে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। শুধু তাই নয় তিনি আলামিন রাশেদকে মাদ্রাসা পরিচালনার জন্য অতিরিক্ত ৪০ হাজার টাকা সহায়তা প্রদান করেন।

এ প্রসঙ্গে জিএম কামরুল হাসান বলেন, যে ছেলেরা আল্লাহর কোরআন পড়ছে তারা যেন কখনো কষ্টে না থাকে, আমি চাই আমিনুল হাফেজ হোক, ওর নাম ছড়িয়ে পড়ুক বিশ্বব্যাপী।

এরকম ছাত্রদের দায়িত্ব নেওয়ার জন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। এছাড়াও হাফেজি শেষ করার পর আব্দুল মোনেম বিজনেস ডিস্ট্রিক্টের মসজিদে আমিনুলের জন্য চাকরির ব্যবস্থা করার আশ্বাস দেন তিনি।

এর আগে, জিএম কামরুল হাসান চাঁদপুরের তাহির মিজির পরিবারের সাহায্যার্থেও নিজের বেতন থেকে ৮০ হাজার টাকা সহায়তা প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, “তুমি চাইলেই হাসবে দেশ” ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের দেশের সামনে তুলে ধরা ও তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করা হয়। এর মাধ্যমে প্রতিদিনের হোম ডেলিভারি অর্ডার থেকে ৫% সহায়তা মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে ইগলু। আর এই অনুষ্ঠানটির সাথে সহযোগী হিসেবে আছে যমুনা টেলিভিশন। অনুষ্ঠানটি প্রতি শুক্রবার এবং মঙ্গলবার রাত ১০টায় একযোগে ইগলু এবং যমুনা টেলিভিশনের ফেসবুক পেজে লাইভ করা হয়

Loading...