আসামিকে না পেয়ে দুধের বাচ্চার উপর নির্মম নির্যাতন;এস আই ইয়াদুল’র অমানবিক নির্যাতনে অতিষ্ট এলাকাবাসী

1736

বরিশাল মেহেন্দিগঞ্জ থানায় গতকাল রাতে অসত্য তথ্য প্রমানে দায়ের করা মামলার আসামী গ্রেপ্তার করতে এসে আসামিকে বাসায় না পেয়ে তার দুধের বাচ্চা শিশুদের উপর নির্মম নির্যাতন চালানোর অভিযোগ উঠেছে মেহেন্দিগঞ্জ থানা পুলিশের এসআই ইয়াদুল’র বিরুদ্ধে।

আসামীর বাড়ির দরজায় লাথি মেরে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে আসামী খোঁজার নামে ঘরের মধ্যে তান্ডব চালায় এসআই ইয়াদুল’র সঙ্গীয় পুলিশ। আসামী ছালাউদ্দীন’র ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করেন তারা। অপর আসামীর ঘরেও তান্ডব চালায় এসআই ইয়াদুল। এ সময় আহত হয় ৭ বছরের শিশু হাবিবা।

মঙ্গলবার সকাল ১০ ঘটিকায় লক্ষীপুর ঢালী বাড়ির রাস্তার মাথায় ও বসতবাড়িতে এ ঘটনা ঘটে, শিশুটির বাবার নাম হানিফ শিকদার, অপর শিশু ইব্রাহিম। উভয় শিশু রক্তাক্ত জখম হয়।

অভিযোগে জানা যায়, গত ২দিন আগে ধুলখোলা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক কথিত সন্ত্রাসী কালাম বেপারী ও তার পোষ্য ক্যাডাররা চাঁদার দাবীতে পাশ্চবর্তী উলানিয়া ইউনিয়নের সলদি লক্ষিপুরের মেম্বার আঃ রব ঢালীর আলীগঞ্জ বাজারে অবস্থিত ২টি দোকানে তালা ঝুলিয়ে দেয়। সেই ঘটনায় মেহেন্দিগঞ্জ থানায় মুঠোফোনে ওসির সহযোগীতা চেয়ে প্রতিকার পাননি মেম্বার। ওই ঘটনা ভিন্নখাতে নিতে অভিযুক্ত কালাম বেপারী তার এক আত্নীয়কে আহত সাজিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করে মেহেন্দিগঞ্জ থানায় উল্টো ক্ষতিগ্রস্ত দোকানদার মেম্বার পরিবারকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় অতিউৎসাহী এস আই ইয়াদুল ঘটনাস্থলে এসে এমন ন্যাক্কারজনক কাজ করেন। এছাড়াও এস আই ইয়াদুল কালাম বেপারীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে কালাম বেপারীর ভিন্নমতের আ’লীগ নেতাকর্মীদের হয়রানী করে যাচ্ছেন।

মেম্বারের পরিবার জানান, সেখানে রাজনৈতিক আদিপত্ত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কালাম বেপারী বনাম জামাল ঢালীর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। কালাম বেপারী তার অবৈধ কর্মকান্ড যেমন চরদখল, নদীতে নৌযান থেকে চাঁদা উত্তোলনসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ড নির্বিগ্নে করার জন্য অতিউৎসাহী পুলিশ ইয়াদুলকে হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করছেন।

অপরদিকে, দীর্ঘ ৯ থেকে ১০ বছর আগে মেহেন্দিগঞ্জ থানায় এএসআই পদে যোগদান করেন ইয়াদুল। সেখান থেকেই আঙ্গুল ফোলে কলা গাছ হওয়া শুরু। ইয়াদুল বরিশালে মেহেন্দিগঞ্জ থানায় যোগদান করে কি এমন আলাদিনের চেরাগ পেয়ে রাতারাতি চাকরীতেও পদ উন্নতি পেয়ে হয়ে গেলেন এসআই । মাঝে মাঝে বদলীর আদেশ আসলেও অর্থ এবং উপর মহলের তদবীরে বদলীর আদেশ বাতিল করে মেহেন্দিগঞ্জ থানায়ই ঘাটি বেঁধে থেকে যান এসআই ইয়াদুল।

চাকরীতে যোগদানের পরই আলাদিনের চেরাগে ফু দিয়ে দিয়ে অর্থ সম্পদের পরিমান দিনকে দিন বৃদ্ধি পেতে পেতে বর্তমানে ইয়াদুল এর নাম শিল্পপতির খাতায়। ইয়াদুল এর আয়ের উৎস কি? রাতারাতি এত অর্থ সম্পদের মালিক হওয়ার পিছনে কি রহস্য লোকায়িত তা জানার অপেক্ষায় সচেতন মহল এবং পুলিশ জনগণের বন্ধু, পুলিশের সুনাম রক্ষার স্বার্থে এ ধরনের অসাধু পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মাননীয় পুলিশের আইজিপি মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন স্থানীয়রা।

উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা থেকে দুদক মহাপরিচালক বরাবর ইয়াদুল এর অবৈধ সম্পদ এবং তার আয়ের উৎস ক্ষতিয়ে দেখার জন্য আবেদন করার প্রেক্ষিতে দুদক বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখছেন বলে জানা যায়।

আজ ১০জুন বুধবার ভোক্তভোগি নির্যাতিত শিশু হাবিবার পরিবারের সদস্য এসআই ইয়াদুল এর এমন অমানবিক কর্মকান্ড এবং অমানুষিক আচরণের জন্য পুলিশ হেড কোয়াটারে আইজিপি বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলেও জানা যায়।

Loading...