সাইনবোর্ড স্থাপন নিয়ে সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহ’ত ১০, গ্রে’ফতার ৫

28

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বালুচর খাসকান্দি হাউজিং প্রকল্পের সাইনবোর্ড স্থাপন নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ পুলিশসহ ১০ জন আহত হয়েছেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ১৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালিয়েছে। পুলিশ এ সময় হাজার খানেক টেটা জব্দ করেছে। এ ঘটনায় ৫ জনকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশের এএসআই দিলীপ কুমার (৪০) আরও দুই কনস্টেবলকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। দু’পক্ষের আহত অপর ৭ জনকে বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

পুলিশ জানায়, বিরোধীয় জমিতে প্রায় চার মাস আগে দক্ষিণা গ্রিন টাউনের সাইন বোর্ড ফেলে দিয়ে সুমনা হাউজিংয়ের সাইন বোর্ড স্থাপন করা হয়। পাল্টা জবাবে রোববার সুমনা হাউজিংয়ের সাইন বোর্ড ফেলে দিয়ে দক্ষিণা গ্রিন টাউনের সাইন বোর্ড স্থাপন করা হয়। জায়গা দখল ও সাইনবোর্ড লাগানো নিয়েই এই সহিংসতা হয়।

মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন সময় সংবাদকে জানিয়েছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টাকালে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে তারা। পরে ফাঁকা গুলি করতে বাধ্য হয় পুলিশ। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অপরাধীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের চান্দের চর খাসকান্দি এলাকায় নিয়ে উত্তেজনা রয়েছে। দেশীয় অস্ত্র টেঁটা-বল্লম ও রামদা নিয়ে একে অন্যের ওপর চড়াও হয়। এ সময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দক্ষিণা গ্রিন সিটির লোকজন সুমনা হাউজিংয়ের সাইনবোর্ড ভাঙচুর করে। আবার দক্ষিণা সিটির লোকজনও পাল্টা অবস্থান নেয়।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, ঘটনাস্থলে ২/৩ হাজার বিঘা জমি নিয়ে এ বিরোধ। উভয় গ্রুপ হয়ত সামান্য কিছু জমি কিনেছে। কিন্তু পেশীশক্তি ব্যবহার করে পুরো জমি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানা যায়, বিগত কয়েক মাস যাবত বালুচর ইউনিয়ন খাসকান্দি চান্দের চর এলাকায় অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা হাউজিং প্রকল্প সুমনা হাউজিং ও দক্ষিণা গ্রিন সিটির মধ্যে জায়গা দখল ও সাইনবোর্ড লাগানো নিয়ে উভয়পক্ষের মাঝে উত্তেজনা চলছিলো। সেই উত্তেজনা শেষে পর্যন্ত গড়িয়েছে টেঁটা-বল্লমের যুদ্ধে। গত ২১ ফেব্রুয়ারি সুমনা হাউজিং প্রকল্পের শীর্ষস্থানীয় নেতারা ৩/৪ শ লোক নিয়ে করে প্রকাশ্যে দেশীয় টেঁটা বল্লম লাঠিসোঁটা নিয়ে দক্ষিণা গ্রিন সিটির সমস্ত সাইনবোর্ড ভেঙে নিয়ে যায় এবং তোদের সাইনবোর্ড লাগিয়ে দেয়। এখন আবার সুমনা হাউজিং এর সাইনবোর্ড ভেঙে নিজেদের স্থান পুনঃদখল নিচ্ছেন

সিরাজদিখান থানার ওসি ফরিদ উদ্দিন সময় সংবাদকে জানান, দুটি হাউজিং প্রকল্পের লোকজনের মধ্যে একটি জায়গা দখল এবং পাল্টা দখল নিয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে জড়ো হয়। এই সময় পুলিশ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। এসময় তারা পুলিশকে উদ্দেশ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে তিন পুলিশ আহত হয়। পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে আত্মরক্ষায় পুলিশ শটগানের গুলি বর্ষণ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

Loading...