শাহেদ কোনো আ.লীগের কমিটির সদস্য নয়: আওয়ামী লীগ | সংবা

70

বহুল আলোচিত রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহেদ নিজেকে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক উপকমিটির সদস্য বলে পরিচয় দিলেও তিনি দলের কোনো কমিটির সদস্য নয় বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ।
বুধবার (৮ জুলাই) গণমাধ্যমকে তিনি এ তথ্য জানিয়ে বলেন, তিনি বলেন, রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান শাহেদকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক উপকমিটির সদস্য বলে প্রচার করা হচ্ছে। এই তথ্য সম্পূর্ণ মিথ্যা ও দলের বিরুদ্ধে অপপ্রচার। তিনি কমিটির সদস্য নন।

ড. শাম্মী আহমেদ সম্পাদক, আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক উপকমিটি এখনো তৈরি হয়নি।আগে কমিটির খসড়া তালিকা তৈরি করব তারপর দলীয় সাধারণ সম্পাদকের কাছে জমা দেওয়া হবে; এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাতে অনুমোদন দেবেন। কিন্তু যেখানে কমিটি জমাই দেওয়া হয়নি, সেখানে এমন যারা উপকমিটির সদস্য হিসেবে পরিচয় দেন, তারা মিথ্যা পরিচয়ই দেন।
আওয়ামী লীগ নেতা, সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী এমনকি তার সঙ্গে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিকের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওই ব্যক্তি দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচিতে বা সামাজিক অনুষ্ঠানে হাজির হতেন। সেই সুযেগে হয়তো কোনো ছবি তুলতে পারেন। এখন সবার হতেই মোবাইল ফোন আছে, যে কেউ কোনো অনুষ্ঠানে চাইলেই ছবি তুলতে পারেন। ছবি তুললেই তো কেউ সংগঠনের হয়ে যান না।

আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক বলেন, কমিটিতে জায়গা পেতে শাহেদ নানারকম চেষ্টা তদবির করেছেন।কিন্তু শুরু থেকেই তাকে টাউট মনে হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন নেতাকে দিয়ে তদবির করার কারণে তার প্রতি সন্দেহ আরো বাড়ে। তাই কমিটি করলে শাহেদকে কমিটিতে রাখব না বলেই আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যদিও চলতি বছরের শুরুতে কমিটি জমা দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নানা ব্যস্ততার কারণে আমি জমা দিতে পারিনি। এরপর তো করোনা শুরু হয়ে গেল।

প্রসঙ্গত, করোনা চিকিৎসার নামে অনিয়ম ও প্রতারণার অভিযোগ ওঠেছে রিজেন্ট হাসপাতালের বিরুদ্ধে। প্রতিষ্ঠানটি সাড়ে প্রায় চার হাজার করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট দিয়েছে।করোনা চিকিৎসার নামে প্রতারণাসহ নানা অভিযোগে সাহেদসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করা হয়েছে। মা’মলার প্রধান আসামী মোহাম্মদ শাহেদ বর্তমানে পলাতক আছেন। তাকে ধরতে অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।
পূর্বপশ্চিম-এনই

Loading...