এবার পর্নোগ্রাফি আইনে মা’মলা করলেন ঢাবির সেই ছাত্রী

261

[১] এবার পর্নোগ্রাফি আইনে মা’মলা করলেন ঢাবির সেই ছাত্রী

বিপ্লব বিশ্বাস : [২] ধ’র্ষণ ও ধ’র্ষণে সহযোগিতা, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চরিত্রহনন ও অপহরণের অভিযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে দুটি মা’মলা করা ঢাবির সেই শিক্ষার্থী এবার পর্নোগ্রাফি ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আরেকটি মা’মলা করেছেন। বুধবার রাতে শাহবাগ থানায় তিনি এই মা’মলাটি করেন।

[৩] বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের সহকারী কমিশনার (এসি) শেখ মোহাম্মদ শামীম এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
[৪] শেখ মোহাম্মদ শামীম বলেন, ‘পর্নোগ্রাফি ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মা’মলা দায়ের করেছেন ঢাবির সেই ছাত্রী। মা’মলায় তিনি কয়েকটি নামযুক্ত ফেসবুক আইডি ও অজ্ঞাত শতাধিক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, পেজ ও গ্রুপ থেকে তাঁর নামে অপপ্রচার ও যৌন উ’ত্তেজনা সৃষ্টিকারী মিথ্যা সংলাপ ছড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন। তিনি এতে আরো উল্লেখ করেছেন, মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে এই মা’মলাটি করেছেন।’

[৫] শেখ মোহাম্মদ শামীম আরো বলেন, ‘এজাহারে তিনি যেসব আইডি বা পেজের কথা উল্লেখ করেছেন আমরা এরইমধ্যে সেসব পেজ বা আইডিগুলো খতিয়ে দেখতে তদন্ত করা শুরু করেছি। মা’মলার অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা পাওয়া গেলে আসা’মিদের বিরুদ্ধে দ্রুতই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

[৬] মা’মলার এজাহারে ওই ছাত্রী বলেছেন, ‘দুটি মা’মলা করার পর থেকে তামান্না ফেরদৌস শিখা, তামান্না আক্তার, তাজুল ইসলাম আকাশ, শারমিন রিজিয়া, এইচ এম হোসাইন বিন নূর, মো. তুহিন মোল্লা হৃদয়, মেহেদী হাসান সুজন ও রেজাউল করিম কাজল নামের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এবং ‘স্বপ্নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ নামে ফেসবুক গ্রুপসহ অজ্ঞাত শতাধিক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, পেজ ও গ্রুপ থেকে আমার নামে যৌন উ’ত্তেজনা সৃষ্টিকারী মিথ্যা অশ্লীল সংলাপ পাবলিক পোস্ট, কমেন্ট ও শেয়ারের মাধ্যমে প্রচার করে আমার ব্যক্তিগত ও সামাজিক মর্যাদাহানি করে আসছে। এ ঘটনায় আমি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত।’
[৭] গত সোমবার রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কোতোয়ালি থানায় নারী ও শিশু নির্যাত’ন দমন আইন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মা’মলা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ওই ছাত্রী। একই বাদী গত রোববার ডিএমপির লালবাগ থানায় একই আসা’মিদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাত’ন দমন আইনে আরেকটি মা’মলা করেছিলেন।

[৮] কোতোয়ালি থানায় করা মা’মলার আসা’মিরা হলেন বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ (২৮), আহ্বায়ক হাসান আল মামুন (২৮), ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর (২৫), ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম (২৮), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র অধিকার পরিষদের সহসভাপতি নাজমুল হুদা (২৫) এবং আব্দুল্লাহিল বাকি (২৩)। এর আগে লালবাগ থানার মা’মলায় হাসান আল মামুনকে ১ নম্বর ও নাজমুল হাসান সোহাগকে ২ নম্বর এবং নুরকে ৩ নম্বর আসা’মি করা হয়।

[৯] মা’মলার প্রধান আসা’মি বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে বুধবার সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় সংগঠনটির পক্ষ থেকে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।