জিয়া হত্যার সাথে বোরকা পড়ে পালিয়ে যাওয়া হাসিনা জড়িত: গয়েশ্বর

1630

ধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়ার লাশ নাই, তাহলে কোথায় আছে আপনি বলেন। আপনি তো অনেক কথাই বলেন আমরা এখনও বলি নাই যে জিয়া হত্যার সাথে আপনি জড়িত।
তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান যেদিন শহীদ হন, সেদিন ভোরবেলা আখাউড়াতে বোরকা পরা একজন মহিলা পুলিশের হাতে ধরা পড়েছিল। বোরকা পড়ে আখাউড়া সীমান্ত দিয়ে তিনি (হাসিনা) পালাচ্ছিলেন বা যাচ্ছিলেন। সেই বুরকা পরা মহিলার নাম কি? হাসিনা।

গতকাল শনিবার (২৮ আগষ্ট) জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ৭১ কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে বাংলাদেশের বর্তমান সংকট ও নিরপেক্ষ নির্বাচন শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গয়েশ্বর বলেন, আপনি হাসিনা ১৭ তারিখে আসলেন ৩০ তারিখে হত্যা হলো আপনি আখড়া সীমান্তের দিকে গেলেন ঢাকা ও তো আসতে পারতেন আসলেন না কেন? আপনি জিয়াউর রহমানের লাশটা কোথায় রাখছেন জাতির সামনে বলেন। আর যদি কথা না বলেন। তাহলে ভবিষ্যতে এ ধরনের কথা উচ্চারণ করবেন না। বিচার কিন্তু শত বছর পরেও হয়। এসব কথা আর বলবেন না কিন্তু।

সুস্থ ভোট হলে তার (আওয়ামী লীগের) নেতাকর্মীরাই তাকে (শেখ হাসিনা) ভোট দেবে না। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে তিনি (হাসিনা) তিনটি আসনে নির্বাচন করেছিলেন তিনটিতেই হেরেছেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে (শেখ হাসিনা) যেসব কথা বলছে আমার মনে হয় মস্তিষ্কের কোনও প্রবলেম আছে, কোনও ফাস্ট্রেশন বা আতংক কাজ করছে। মানুষ গভীর রাতেও কিন্তু হাটে, শ্মশান বা কবর স্থানের পাশ দিয়ে যখন যায় তখন কিন্তু মানুষ জোরে জোরে গান গায়। জোরে জোরে গান গাই এই কারণে যে শ্মশান বা কবরস্থানের যে একটা ভয় সেটা দূর করতে চাই। ইদানিংকালে তিনি (শেখ হাসিনা) যে ধরনের কথা বলতেছে আমার মনে হয় তিনি কোনও আতঙ্কে আছে। তা না হলে তিনি যে দায়িত্বশীলতার মধ্যে আছেন সেখান থেকে এ ধরনের কথা মানায় না।

বিএনপির এ শীর্ষ নেতা বলেন, দেশটা কোথায় ছিল কোথায় নিয়ে গেছে ধ্বংসের কাছাকাছি নিয়ে গেছে। আপনার শেখ হাসিনা বাবার সময় ছিল দুর্ভিক্ষ আর আপনার সময় মুদ্রাপাচার আকাশ সমান। দুই বিষয়টা একই রকম।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ঢালী আমিনুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, এলডিপির মহাসচিব শাহদত হোসেন সেলিম, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমাতুল্লাহ প্রমুখ বক্তব্য দেন।