প্রধানমন্ত্রী আশ্রয়ণ প্রকল্প লোপাটকারীদের পক্ষ নিয়েছেন: রিজভী

131

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশ্রয়ণ প্রকল্প লোপাটকারীদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আশ্রয়ণ প্রকল্প করেছেন। যাদের ঘর বাড়ি নেই তাদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য। সেটা ভেঙেচুরে তছনছ হয়ে গেছে। এটাকে প্রধানমন্ত্রী বলছেন, কেউ হাতুড়ি দিয়ে ঘর ধ্বংস করেছে। এটার পেছনে যে লক্ষ কোটি টাকা দুর্নীতি হয়েছে সেটা প্রধানমন্ত্রী এড়িয়ে যাচ্ছেন। যারা অর্থ লোপাট করে যেনতেন ভাবে ঘর তৈরি করলেন, তাদের কিছু বললেন না। এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।
শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, দেশে আজ ভালো মানুষের জায়গা নেই। চোর বদমাইশেরা আজ মহিমান্বিত। স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া, দেশের দুঃসময়ে গোটা জাতিকে আলোর দিশা দেখিয়েছেন। তিনি বারবার গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে এনেছেন। তাঁকে নিয়ে কুৎসা রটানো হচ্ছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। ওরা মনে করে টিকে থাকতে হলে জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে। কুৎসা রটিয়ে, মিথ্যা আক্রমণ করে ওটা যে টেকানো যায় না, এটা এখনো প্রধানমন্ত্রী (শেখ হাসিনা) উপলব্ধি করতে পারেননি। এরশাদের আমলে কারা দালালি করেছে সেটাও আমরা জানি। আজকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াকে নিয়ে না নানা ধরনের আজেবাজে কথা বলা হচ্ছে, এটা জনগণ কখনোই আমলে নেয় না। জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে কুৎসা রটানোর বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আজকে দেশের কোথাও ন্যায় নীতির বালাই নেই। সবখানে চলছে হাসিনা নীতি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে গোপি গাইনের সঙ্গে তুলনা করে রিজভী বলেন, আপনারা দেখেছেন সত্যজিত রায়ের চলচ্চিত্রে বাঘা বাইন আর গোপি গাইন রয়েছে। বাংলাদেশ রাজনীতিতে একজন গোপি গাইন আছে, যিনি কেবল মিথ্যার গান গেয়ে যান। তিনি হচ্ছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি যে কত মিথ্যা কথা বলছেন সেটা তিনি নিজেই বুঝতে পারেন না।

ওবায়দুল কাদের বিএনপির আন্দোলনকে নিয়ে রঙ্গ করছে জানিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে বিএনপি ২০১৩,১৪, ১৫ সালে যে আন্দোলন করেছে। সেই আন্দোলনে আপনারা নিষ্ঠুর ব্যবহার করেছেন। এ দেশে নতুন একটি ব্যবস্থা আপনারা প্রতিষ্ঠিত করেছেন। সেটি হচ্ছে গুম। যারা নাগরিক স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলে, মানুষের মুক্তির কথা বলে, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার কথা বলে তাহলে তাকে গুম করে দেওয়া হয়। এটাই এই সরকারের পুরস্কার। দিনে রাতে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হবে, তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাবে না। এভাবে আমরা হারিয়েছি ইলিয়াস আলীকে, চৌধুরী আলমকে, সাইফুল ইসলাম হিরককে, হুমায়ুন পারভেজ সহ শত শত নেতা-কর্মীকে। গণতান্ত্রিক আন্দোলন দমন করতে আপনারা ব্যবহার করেছেন গুম আর বিচারবহির্ভূত হত্যাকে।
পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস