নামাজে অনিহা কাটানোর সহজ কিছু উপায়

87

নামাজ ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ একটি স্তম্ভ। নামাজের মাধ্যমে আল্লাহর সান্নিধ্য গ্রহণ করা সম্ভব। এই ইবাদত আল্লাহর সঙ্গে কথা বলার অনন্য একটি মাধ্যম। আল্লাহ তায়ালা আমাদের ওপর পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ফরজ করেছেন। এ কারণে আমরা যতো বেশি ব্যস্তই থাকি না কেন, আল্লাহর দরবারে দিনে-রাতে পাঁচবার হাজিরা দেয়ার সময় অবশ্যই বের করতে হবে।
একজন মুসলিম এবং কাফেরের মধ্যকার প্রধান পার্থক্য হচ্ছে নামাজ। আব্দুল্লাহ ইবনে শাকিক (রহ.) বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) এর সাহাবীরা (রা.) নামাজ ছাড়া অন্য কোনো আমল ছেড়ে দেয়াকে কুফুরি মনে করতেন না। (তিরমিজি: ২৬২২)

এতোকিছু জানার পরও আমাদের অনেকের মধ্যে নামাজ পড়ার ব্যাপারে অনিহা দেখা দেয়। আসলে এসবই শয়তানের প্ররোচনা। চলুন জেনে নেয়া যাক অনিহা কাটিয়ে নিয়মিত নামাজ আদায় করার কিছু উপায়-

নামাজে যা পাঠ করা হয় তার অর্থ জানানামাজে পাঠ করা সুরা এবং অন্যান্য দোয়ার অর্থ জানা একদিকে যেমন নামাজে মনোনিবেশ করাকে সহজ করে তোলে পাশাপাশি নামাজের সঙ্গে মুসল্লির একটি সুসম্পর্ক গড়ে তোলে। তাই নামাজে সচরাচর পাঠ করা সুরা এবং দোয়াগুলোর অর্থ জেনে নিতে হবে যাতে নামাজ আমাদের জন্য অন্তঃসারশূন্য না হয়। এতে করে নামাজ আদায়ের প্রতি কোনো অনীহা থাকলে তা দূর হয়ে যাবে।

দৈনন্দিন কাজসমূহের সুষ্ঠু পরিকল্পনা করাপ্রতিটি দিন শুরু করার আগে ওই দিনের জন্য একটি সুষ্ঠু কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। কর্মপরিকল্পনা তৈরি করার ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে, নামাজের সময়গুলোতে যেনো কোনো কাজ না থাকে। স্কুল-কলেজে, অফিসে অথবা মার্কেটে কিংবা পরিবার পরিজনের সঙ্গে কোথাও বেড়াতে গেলে, সবক্ষেত্রেই নামাজের জন্য আগে থেকেই আলাদা করে সময় নির্ধারণ করে রাখতে হবে।

সর্বদা নামাজের জন্য প্রস্তুত থাকাকোনো কাজে বাইরে যাওয়ার পরিকল্পনা থাকলে সঙ্গে করে জায়নামাজ, হিজাব এবং নামাজের জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য সামগ্রী নিয়ে যেতে হবে, যাতে করে এগুলোর কোনো একটি না থাকাটা নামাজ বাদ দেয়ার কারণ/অজুহাত না হতে পারে। নামাজ আদায়ের জন্য সবসময় শরীর পবিত্র রাখতে হবে।

মোবাইলে অ্যালার্ম সেট করাবর্তমানে এমন অনেক অ্যাপ পাওয়া যায় যেখানে আপনার স্থানীয় সময়ে নামাজের সময় দেখাবে এবং নামাজের সময় হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আজান শুরু হয়ে যাবে। এ ধরনের অ্যাপ সময়মত নামাজ আদায় করার জন্য বেশ কার্যকর। আর যদি এ রকম কোনো অ্যাপ খুঁজে না পান তাহলে অন্তত নিজের কাছে থাকা ফোনে নামাজের সময়গুলোতে অ্যালার্ম সেট করে রাখতে পারেন। এতে করে আপনার ব্যবহৃত ফোনটি সময়মত সালাত আদায়ের জন্য একটি চমৎকার রিমাইন্ডারে পরিণত হবে।

প্রতিদিনের নামাজের জন্য একটি চেকলিস্ট তৈরি করাদিন শেষে আপনি যে নামাজগুলো আদায় করলেন, সেগুলোতে টিক চিহ্ন দিন। এতে করে সালাত আদায়ে নিয়মিত হতে আপনার আগ্রহ আরও বৃদ্ধি পাবে। কোনো সালাত মিস হয়ে গেলে তার কারণ খুঁজে বের করতে হবে ও এর প্রতিকার করতে হবে।

দোয়া করাসবসময় আল্লাহর কাছে দোয়া করতে হবে যেনো আল্লাহ তায়ালা নামাজকে আপনার দৈনন্দিন কাজের অংশ বানিয়ে দেন। নিয়মিত নামাজ আদায়ের জন্য কোনো রুটিন বানালে আপনি যেনো সেই রুটিন যথাযথভাবে অনুসরণ করতে পারেন, সেজন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করতে হবে।
মহান আল্লাহ পাক আমাদের দৈনিক পাঁচবার তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।