রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ও এরশাদ সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য: তথ্য প্রতিমন্ত্রীর অপসারণ দাবি জাপার

363

রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, সংবিধান ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম হুসেইন মুহুম্মদ এরশাদ সম্পর্কে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসানের ‘অশালীন, কাণ্ডজ্ঞানহীন ও কুরুচিপূর্ণ’ বক্তব্যের প্রতিবাদে মন্ত্রিপরিষদ থেকে তার অপসারণের দাবি জানিয়েছে জাতীয় পার্টি (জাপা)।

বৃহস্পতিবার কাকরাইলে পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয় প্রাঙ্গণে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় এ দাবি জানানো হয়। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় অতিরিক্ত মহাসচিব অ্যাডভোকেট মো: রেজাউল ইসলাম ভুইয়া এতে সভাপতিত্ব করেন।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, সংবিধান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এবং সাবেক সেনাপ্রধান মরহুম পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সম্পর্কে অশালীন, কাণ্ডজ্ঞানহীন ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের জন্য ডা: মুরাদ হাসানকে অবিলম্বে মন্ত্রিপরিষদ থেকে অপসারণ করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। তারা বলেন, প্রতিমন্ত্রী মুরাদ রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সংবিধান থেকে বাদ দেয়ার কথা বলে তার মন্ত্রী হিসেবে শপথের শর্তভঙ করেছেন। এ কারণে তাকে অতিবিলম্বে মন্ত্রিসভা থেকে অপসারণ করতে হবে। তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা রুজু করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বানও জানান জাপা নেতারা। অন্যথায় জাতীয় পার্টি- ইসলাম, সংবিধান ও দলের প্রতিষ্ঠাতা এরশাদকে নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে দেশব্যাপী তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারি দেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন জাপা চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা মো: জহিরুল আলম রুবেল, হেনা খান পন্নি, ভাইস চেয়ারম্যান মো: শফিকুল ইসলাম শফিক, ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া, যুগ্ম-মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, ফকরুল আহসান শাহজাদা, মো: বেলাল হোসেন, সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য এ বি এম লিয়াকত হোসেন চাকলদার, কাজী আবুল খায়ের, আহাদ ইউ চৌধুরী শাহীন, মিজানুর রহমান মিরু, জাকির হোসেন মৃধা, শেখ মোহাম্মদ শান্ত, মীর সামসুল আলম লিপটন, হাফেজ কারী ইছারুহুল্লা আসিফ, নির্বাহী সদস্য মফিজুর রহমান, জাপা শ্যামপুর থানার সভাপতি কাউসার আহম্মেদ, জাতীয় ছাত্র সমাজের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন প্রমুখ।

প্রতিবাদ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা হারুন অর রশীদ, যুগ্ম-মহাসচিব এ কে এম আসরাফুজ্জামান খান, সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু, সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য মাহমুদা রহমান মুন্নি, মো: হুমায়ুন খান, আনোয়ার হোসেন তোতা, আবু জায়েদ আল মাখন সরকার, সুলতান মাহমুদ, এ ম এ রাজ্জাক খান, মো: জহিরুল ইসলাম মিন্টু, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: ইসহাক ভুইয়া ও নুরুল হক নুরু প্রমুখ।