আ.লীগের সভাপতি আগামী কাউন্সিলে একই থাকবে: কাদের

64

শুক্রবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ২০-২১ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের একাদশ জাতীয় কাউন্সিলে দলীয় সভাপতির পদে কোনও পরিবর্তন হবে না।
‘একটি পদে কোনও পরিবর্তন হবে না এবং তা হ'ল রাষ্ট্রপতির পদ। আমাদের দলের সভাপতি শেখ হাসিনা এখনও দলের জন্য প্রয়োজনীয় এবং প্রাসঙ্গিক কারণ তার নেতৃত্বে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সকল নেতা-কর্মী areক্যবদ্ধ রয়েছে। তাকে বাদে আমাদের কারওই অত্যাবশ্যক নয়, ’তিনি বলেছিলেন।

Presidentাকার দলীয় সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে একবিংশ জাতীয় কাউন্সিলকে উপলক্ষে গঠিত আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
কাদের, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীও বলেছেন, সাধারণ সম্পাদক পদে কোনও পরিবর্তন আনা হবে কিনা তা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সিদ্ধান্ত নেবেন।

আদালত কক্ষে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছিল, সে সম্পর্কে আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছিলেন যে তাদের কার্যক্রম একটি অবিস্মরণীয় অপরাধ, তিনি আরও বলেন, এটি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক মামলা নয়, বরং এটি একটি দুর্নীতির মামলা।

তিনি বলেন, সরকার খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে মুক্তি দিতে পারে না কারণ দুর্নীতির মামলায় তার কিছুই করার নেই।
কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার ছড়াচ্ছে। ‘বিএনপি নেতারা বলছেন খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে কারাগারে রাখা হয়েছে। তবে তারা মিথ্যা কথা বলছে। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে এটি করছে, ’তিনি যোগ করেছেন।
আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আদালত প্রাঙ্গণকে যুদ্ধের ময়দানে পরিণত করেছেন।
তিনি বলেন, এমনকি প্রধান বিচারপতিকেও এই ঘটনার বিষয়ে মন্তব্য করতে হয়েছিল যে তিনি আদালতের কক্ষে এমন পরিস্থিতি আগে কখনও দেখেননি। প্রধান বিচারপতি আরও মন্তব্য করেছিলেন যে, প্রত্যেক কিছুরই সীমা রয়েছে।

নির্বাচন ও আন্দোলনে ব্যর্থ হওয়ার পরে কাদের বলেন, এখন অস্থিরতা সৃষ্টি করে অশান্ত জলে মাছ ধরা ছাড়া বিএনপির কিছুই করার নেই।
‘বিএনপি এখন আদালতের অভ্যন্তরে এবং আদালত প্রাঙ্গণে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে… এটাই তাদের রাজনীতি। তারা এখন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে এবং মানুষকে উদ্বুদ্ধ করবে, ’তিনি বলেছিলেন।
আ.লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও অফিস বিষয়ক উপ-কমিটির আহ্বায়ক পিজুশ কান্তি ভট্টাচার্য্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য আনোয়ার হোসেন ও উপ-কমিটির সদস্য খন্দকার তারেক রায়হান উপস্থিত ছিলেন অন্যদের মধ্যে দেখা।