Home / জাতীয় / এবার ইসলামী ব্যাংকের নীতিমালায় পরিবর্তন

এবার ইসলামী ব্যাংকের নীতিমালায় পরিবর্তন

ইসলামী ব্যাংকের শীর্ষ পদে বড় ধরনের পরিবর্তনের পর এখন অন্যান্য খাতেও পরিবর্তন আসতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে ব্যাংকের জনবল কাঠামোতে কিছু পরিবর্তন করা হয়েছে। ব্যাংক পরিচালনায় আরো কিছু নীতিতে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এসব বিষয়ে অচিরেই ব্যাংকের নতুন পরিচালনা পর্ষদ থেকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে।

সূত্র জানায়, ইসলামী ব্যাংক পরিচালনায় আরো যেসব নীতিতে পরিবর্তন আনা হচ্ছে, সেগুলোর মধ্যে রয়েছে- ব্যাংকে বর্তমানে নারী কর্মীর সংখ্যা খুবই কম। এখন থেকে নারী কর্মী নিয়োগের সংখ্যা বাড়ানো হবে। সেই সঙ্গে ব্যাংকটিকে সাম্প্রদায়িক ভাবধারা থেকে বের করে আনতে সব ধর্মের জনবল নিয়োগ উন্মুক্ত করা হবে, যা আগে শুধু মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের নিয়োগ দেওয়া হতো। ব্যাংকের পর্ষদে এখন বা আগে কখনই মহিলা সদস্য ছিল না। এখন পর্ষদে একজন মহিলা সদস্যকে নির্বাচন করে আনা হবে। ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক পর্যায়ে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হবে, যা আগে পরিবর্তন হতো খুব কম। ব্যাংক আগে ছোট ও মাঝারি প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে উৎসাহিত হতো। এখন ওইসব প্রকল্পের পাশাপাশি বড় বড় প্রকল্পে বিনিয়োগে উৎসাহিত করা হবে। এ ছাড়া ব্যাংকের সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিল ব্যবহারের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন আসছে। আগে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এ সুবিধা পেতেন জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। এখন এই সেবা সমাজের দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্ছিত শ্রেণির জন্য উন্মুক্ত করা হবে। এ ছাড়া বর্তমানে নিয়োগ পরীক্ষায়ও পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এমন তথ্য দিয়ে একটি প্রতিবেদক প্রকাশ করেছে আমাদের সময়।

এসব বিষয়ে নতুন পর্ষদ দায়িত্ব নিয়ে কাজ শুরু করেছে। অচিরেই এসব বিষয়ে তারা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করবে।গত বৃহস্পতিবার ইসলামী ব্যাংকের নতুন চেয়ারম্যান ও নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে অন্য শীর্ষপদগুলোতে পরিবর্তন আনা হয়। নতুন পর্ষদ ইসলামী ব্যাংকে মূলনীতিতে পরিবর্তন না করার ঘোষণা দেয়। তবে কাঠামোগত পরিবর্তন শুরু হয়েছে বলে জানানো হয়।

অভিযোগ রয়েছে, ইসলামী ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র এমনভাবে করা হয়, তাতে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ও একটি রাজনৈতিক ভাবধারার শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে থাকে। তারাই ব্যাংকে নিয়োগ পান। মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া পরিবর্তন করবে ব্যাংকটি।

এ ছাড়া ইসলামী ব্যাংক সবচেয়ে সফল ব্যাংক হলেও এর বেতন কাঠামো অনেক কম। বেতন কাঠামো পরিবর্তন করে অন্য ব্যাংকগুলোর সমপর্যায়ের করার উদ্যোগ নিচ্ছে ব্যাংকটি। এ ছাড়া ব্যাংকটির সব স্তরে বেতন কাঠামো বাড়ানো হবে।

দায়িত্ব নিয়ে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আরাস্তু খান বলেছেন, মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। সাম্প্রদায়িক দিক বিবেচনা না করে মেধার ভিত্তিতে যোগ্যদের নিয়োগ দেওয়া হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএয়ের মতো প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।

এদিকে ইসলামী ব্যাংকগুলোর জন্য আলাদা ইসলামী বন্ড রয়েছে। তাই অন্য কোনো সরকারি বন্ডে বিনিয়োগ করতে পারে না ইসলামী ব্যাংক। উন্নয়ন কার্যক্রমের জন্য অর্থ সংগ্রহে বন্ড ইস্যু করে সরকার। ব্যাংকগুলো এই বন্ড ক্রয় করে। ইসলামী ব্যাংকে ৬৮ হাজার কোটি টাকা আমানত রয়েছে। এটি বাংলাদেশের জনগণের অর্থ। বিনিয়োগ করেও বিপুল পরিমাণ অর্থ অলস রয়েছে। তাই অলস অর্থ সরকারি মেগা প্রজেক্টে বিনিয়োগের চিন্তা করছে নতুন কর্তৃপক্ষ। এ জন্য নীতিতে যে ধরনের পরিবর্তন করা দরকার সেটি করার উদ্যোগ নিচ্ছে ব্যাংকটি। এর মাধ্যমে ১ শতাংশ জিডিপি বাড়াতে চায় নতুন কর্তৃপক্ষ।

এ ছাড়া ইসলামী ব্যাংকের প্রশাসনিক কাঠামোতে পরিবর্তনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নতুন চারজন ডিএমডি নিয়োগের পর তাদের মধ্যে দায়িত্ব বণ্টন করা হয়েছে। ডিএমডি ও এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট (ইভিপি) পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ ৩৫ জনের দায়িত্বে রদবদল করা হয়েছে। দুয়েক দিনে আরও বড় ধরনের রদবদল করা হবে। এ ছাড়া কর্মকর্তাদের পদোন্নতি দিতে মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ হচ্ছে। দুয়েক দিনের মধ্যে পদোন্নতি দেওয়া হবে। এর পর আবার দায়িত্বে রদবদল করা হবে।

এদিকে নতুন দায়িত্বে আসা চেয়ারম্যান আরাস্তু খান গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ইসলামী ব্যাংকের পরিবর্তন সম্পর্কে দিকনির্দেশনার জন্য এ বৈঠক হয়েছে বলে জানা গেছে।

Facebook Comments
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.