বঙ্গবন্ধু হবে বাংলাদেশের ছবি, বলিউড বা বচ্চনের নয়ঃ শ্যাম বেনেগাল

171

স্টাফ রিপোর্টার: মুজিববর্ষের সূচনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জীবন-নির্ভর যে কাহিনিচিত্র বা বায়োপিকের শুটিং শুরু হতে যাচ্ছে, তা বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হলেও পরিচালক শ্যাম বেনেগাল একে ‘শেষ বিচারে বাংলাদেশের এবং বাঙালি জাতীয়তাবাদের ছবি’ বলেই বর্ণনা করছেন।বুধবার (৪ মার্চ) বিকেলে বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এই ছবির নানা দিক নিয়ে কথা বলেছেন।

ব্যাখ্যা করেছেন কেন এই ছবিতে বাংলাদেশের শিল্পী ও অভিনেতারাই সংখ্যায় অনেক বেশি এবং কেন অমিতাভ বচ্চনের মতো ভারতীয় মেগা-তারকাকে এই ছবিতে দেখা যাবে না।বলিউডের এই বর্ষীয়ান পরিচালকের সঙ্গে বাংলা ট্রিবিউনের  কথোপকথনের সারাংশ নিচে তুলে ধরা হল :বাংলা ট্রিবিউন : গতকাল ঢাকায় বিএফডিসি’র পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধু ছবির ৫০ জন শিল্পীর নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে …বেনেগাল: হ্যাঁ, বিষয়টা আমি জানি। তালিকা মিডিয়াতে প্রকাশ করার আগে ওরা আমাকে জানিয়েও ছিলেন।বাংলা ট্রিবিউন :  কিন্তু এ পর্যন্ত প্রকাশিত তালিকায় সব নামই বাংলাদেশের শিল্পীদের – ভারতের কেউ সেখানে নেই!বেনেগাল: সেটাই কি স্বাভাবিক নয়?

এই ছবি হয়তো দুই দেশের অর্থায়নে বা যৌথ প্রযোজনায় তৈরি হচ্ছে, কিন্তু শেষবিচারে এটা তো বাংলাদেশেরই ছবি। বা অন্যভাবে বললে বাঙালি জাতীয়তাবাদের বিনির্মাণের ছবি। বাংলাদেশের জাতির জনকের জীবন নিয়ে তৈরি হচ্ছে এই ছবি, সেখানে বাংলাদেশের শিল্পীরাই সংখ্যায় বেশি হবেন এটাই তো প্রত্যাশিত। কাস্টিং চূড়ান্ত করার আগে এই জিনিসটা আমরা মাথায় রেখেছি।

বাংলা ট্রিবিউন :  তাহলে ভারতের অভিনেতাদের এই ছবিতে কোনও ভূমিকা থাকছে না?বেনেগাল : বিষয়টা ঠিক সেরকম নয়। বাংলাদেশের রূপকারের জীবন নিয়ে ছবি হলেও এর প্রেক্ষাপট তো আন্তর্জাতিক–কাজেই সেখানে নিশ্চয় অন্যান্য দেশের অভিনেতারাও থাকবেন, ভারতও তার অন্যতম একটি দেশ। তবে তাদের সংখ্যা খুব একটা বেশি হবে না। কারণ এটা মূলত বাংলা ভাষার ছবি–যা পরে ইংরেজি বা হিন্দিতে ডাব হতে পারে–এটা খেয়াল রাখতে হবে।   বাংলা ট্রিবিউন : অথচ বাংলাদেশে একটা সময় প্রবল জল্পনা ছিল অমিতাভ বচ্চনের মতো সুপারস্টারকেও এই ছবিতে দেখা যেতে পারে?বেনেগাল : প্রশ্নই ওঠে না।

আমি তো কোনও বলিউড ব্লকবাস্টার বানানোর চেষ্টা করছি না–যেমনটা বললাম, আমি বাংলাদেশের ছবি বানাতে চাই, বচ্চনের ছবি নয়। এই বায়োপিকের ফোকাসটা সম্পূর্ণ অন্য জায়গায়, এটা আপনাদের বুঝতে হবে। এখানে একটা জাতির আবেগ, তাদের অনুভূতির প্রশ্ন জড়িত–সেটা তো আমাকে মর্যাদা দিতেই হবে, তাই না?বাংলা ট্রিবিউন : তাহলে রিচার্ড অ্যাটেনবরোর ‘গান্ধী’-কে যেমন অনেকে ভারতীয় জাতীয়তাবাদের আলটিমেট ছবি বলে বর্ণনা করেন, বেনেগালের 

‘বঙ্গবন্ধু’ও কি সেরকম কিছুই হতে যাচ্ছে?বেনেগাল (হাসতে হাসতে) : সেই তুলনা তো সমালোচকরা করবেন, আমি আর কী বলবো? তবে এটা আপনাকে মনে করিয়ে দেবো, অ্যাটেনবরো যখন গান্ধী তৈরির কাজে হাত দেন তখন ভারতের জাতির পিতার ভূমিকায় বেন কিংসলে-র মতো ব্রিটিশ অভিনেতা কেন অভিনয় করবেন তা নিয়েও কিন্তু প্রচুর বিতর্ক হয়েছিল। সেই বিতর্ক চাপা দিতেই সম্ভবত, বেন কিংসলে-র ভারতীয় বা গুজরাটি শিকড় নিয়ে নানা খবরও তখন সংবাদমাধ্যমে বেরিয়েছিল। তার গুজরাটি পূর্বপুরুষরা কে কবে ইস্ট আফ্রিকায় ছিলেন এসব আর কী…।

কিন্তু, আমার ধারণা, সেসব খবর ছিল অনেকটাই ভুয়া!ইনফ্যাক্ট, সেসব সমালোচনার ধার এতটাই তীব্র ছিল যে প্রায় এক যুগ পরে ভারত সরকার গান্ধীর একটি পাল্টা জীবনীচিত্র তৈরির সিদ্ধান্ত নেন–আর সেই ছবি বানানোর ভারও এসে পড়ে এই অধমের ওপর। দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে আমার ‘মেকিং অব দ্য মহাত্মা’ ছবি তৈরির রহস্য এটাই–যেখানে গান্ধীর ভূমিকায় ছিলেন শতভাগ ভারতীয় রজিত কাপুর!বাংলা ট্রিবিউন : বোধহয় একটু আন্দাজ করতে পারছি বঙ্গবন্ধুর চরিত্রে কেন আপনি আরিফিন শুভকেই বেছে নিয়েছেন…বেনেগাল : সেটা শুধু একটা কারণে নয় অবশ্য–এর পেছনে অনেকগুলো ফ্যাক্টর কাজ করেছে।

সবচেয়ে বড় কথা, অডিশনে উনাকেই আমাদের যোগ্যতম মনে হয়েছে। তাকে সেই প্রাপ্য সম্মানটুকু তো দিতেই হবে।বাংলা ট্রিবিউন : তবে ভারতের অন্য শিল্পীদের এই ছবিতে দেখা যেতে পারে?বেনেগাল (হেসে) : আবার বলছি, সেটা আমার ঘোষণা করা শোভা পায় না। তবে আপনাকে একটু হিন্ট (আভাস) দিতে পারি… যেমনটা আগেই বলছিলাম এটা বাংলা ভাষার ছবি, কাজেই ভারতেরও বাঙালি শিল্পীরাই নিশ্চয় প্রাধান্য পাবেন। পশ্চিমবঙ্গের শিল্পীরা থাকবেন, ভারতের অন্য প্রান্তের শিল্পীরাও দু’চারজন থাকবেন–তবে সেগুলো পার্শ্বচরিত্রে, প্রধান চরিত্রে নয়।প্রায় ১৪ বছর আগে বাঙালির আর এক প্রবাদপ্রতিম নায়ক, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোসের জীবন নিয়েও আমি একটি ছবি বানিয়েছিলাম–‘বোস দ্য ফরগটেন হিরো’!

সেই ছবির অভিনেতারাও হয়তো কেউ কেউ এবারেও থাকবেন।(প্রসঙ্গত, বাংলা ট্রিবিউনের পাঠকদের এখানে জানানো যেতে পারে, শ্যাম বেনেগাল যে ছবিটির কথা উল্লেখ করলেন, সেখানে নেতাজি সুভাষ বোসের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন মারাঠি অভিনেতা শচীন খেডেকার।কলকাতার যীশুসেনগুপ্ত ছিলেন, ছিলেন শ্যাম বেনেগালের অত্যন্ত প্রিয় অভিনেতা রজিত কাপুর, আরিফ জাকারিয়া, দিব্যা দত্তারা।

তাদের কাউকে কাউকে হয়তো বঙ্গবন্ধুতেও দেখা যাবে, এছাড়া কলকাতার বর্তমানের নামি অভিনেতা কৌশিক সেনও বঙ্গবন্ধু চলচ্চিত্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অডিশন দিয়েছেন–যদিও তার নির্বাচন এখনও চূড়ান্ত হয়নি।)বাংলা ট্রিবিউন : যেটুকু বললেন, তার জন্যই অনেক ধন্যবাদ। শ্যুটিং কবে শুরু হচ্ছে জানতে পারি কি?বেনেগাল: অবশ্যই। এটা আপনাকে বলতে পারি, দিন দশ-বারোর মধ্যেই আমিসহ পুরো প্রোডাকশন টিম বাংলাদেশে উড়ে যাচ্ছি।

একদল আরও আগেই পৌঁছে যাচ্ছে। ১৭ মার্চ মুজিববর্ষের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন তথা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপনের সূচনা–ঠিক তার আগেই আমরা এই ছবির শ্যুটিং শুরু করতে চাই। শ্যুটিংয়ের প্রথম লোকেশন রাজধানী ঢাকাতেই–আশা করি আপনাদের শুভেচ্ছা পাবো!বাংলা ট্রিবিউন :  অবশ্যই। অজস্র শুভেচ্ছা এবং আমাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য কৃতজ্ঞতা রইল।বেনেগাল: ধন্যবাদ আপনাদেরও। 

Loading...