‘বিডিআর বিদ্রোহে খালেদা জিয়ার লাভ হয়েছে’

10

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, সরকার কিংবা আওয়ামী লীগ নয়, বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় বিএনপি ও দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার লাভ হয়েছে।

‘বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় কারা লাভবান হয়েছে?’ গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে আজ বুধবার এক অনুষ্ঠানে হাছান মাহমুদ এ কথা বলেন। জাতীয় প্রেসক্লাবের হল রুমে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত আলোচনা সভায় হাছান মাহমুদ এসব কথা বলেন।

‘বিডিআর বিদ্রোহের রায়ের আরও তদন্ত হওয়া প্রয়োজন’— গতকাল মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেওয়া এমন বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, বিডিআর বিদ্রোহের সঙ্গে যারা সরাসরি যুক্ত তাদের বিচার হয়েছে। এখন তদন্তের মাধ্যমে ষড়যন্ত্রকারীদেরও বিচার হওয়া প্রয়োজন।

বিএনপির সম্পৃক্ততার ঘটনা তদন্তের জন্য কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বের করা প্রয়োজন জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘খালেদা জিয়া তিনি দুপুর ১২টার আগে ঘুম থেকে ওঠেন না। অথচ সেদিন তিনি সকাল ছয়টার সময় ঘুম থেকে উঠে সকাল সাতটার মধ্যে ক্যান্টনমেন্টের বাসা থেকে কেন বের হয়েছিলেন?’

সেদিন খালেদা জিয়া কেন ক্যান্টনমেন্টের বাসায় রাত্রিযাপন করলেন না? এমন প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, সেদিন তারেক জিয়ার সঙ্গে খালেদা জিয়ার বহুবার কথা হয়েছিল, যা স্বাভাবিক ছিল না। কী কথা হয়েছিল, তার সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘বিশ্বের ১৭৭টি দেশের সৎ রাজনীতিবিদদের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবস্থান তৃতীয়। এটি দেশ ও জাতির জন্য গৌরবের। অপর দিকে প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় খালেদা জিয়া এনবিআরকে নির্দিষ্ট পরিমাণ জরিমানা দিয়ে কালো টাকা সাদা করেছেন। এতেই প্রমাণিত হয়, তাঁর যে ব্ল্যাক মানি ছিল, তা দালিলিকভাবে স্বীকার করেছেন। খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকাকালে দেশ দুর্নীতিতে পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। দেশকে দুর্নীতির মহাসাগরে রূপান্তর করেছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন।’

বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের উপদেষ্টা শফিকুর বাহার মজুমদার টিপুর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, পরিষদের সভাপতি মোহাম্মদ জিন্নাত আলী জিন্নাহ, বলরাম পোদ্দার প্রমুখ।