Breaking News
Home / Uncategorized / ছয় প্রজন্মকে দেখা বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ ব্যক্তি নাজিম উদ্দিন

ছয় প্রজন্মকে দেখা বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ ব্যক্তি নাজিম উদ্দিন

চলে গেলেন ছয় প্রজন্মকে দেখা বিশ্বের প্রবীণতম ব্যক্তি দাবিদার নাজিম উদ্দিন খান। গাজীপুরের শ্রীপুরের চিনাশুখানিয়া গ্রামের নিজ বাড়িতে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি মারা যান।

এমন এক সময় এ প্রবীণের মৃত্যু হয়েছে যখন পৃথিবীর সবচেয়ে জ্যেষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান পাওয়ার প্রক্রিয়া চলছিল।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় প্রায় ১২৯ বছর বয়সে (জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী) বার্ধক্যজনিত কারণে নিজ বাড়িতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

নাজিম উদ্দিন খাঁনের ভাতিজা প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক (অবসরপ্রাপ্ত) মো: রশিদ খাঁন জানান, বিকেল ৫টায় চিনাশুখানিয়ার দিঘিরচালা স্কুল মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে চির নিদ্রায় সমাহিত করা হয়েছে।

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার রাজাবাড়ি ইউনিয়নের চিনাশুখানিয়া গ্রামে ১৮৮৮ সালের ৮ মার্চ (জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী) এই প্রবীণের জন্ম হয়েছিল। বাবা আজমাইল খান এবং মাতা ফুলজান বিবির বড় ছেলে ছিলেন মো. নাজিম উদ্দিন খান।

যদিও এই প্রবীণ মৃত্যুর আগে দাবি করেছিলেন ২০১৬ সালে ১৫০ বছরে পা রেখেছেন তিনি। সেই হিসাবে তার জন্ম হওয়ার কথা ১৮৬৫ সালের দিকে। তাঁর জন্মনিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্রে ৮ মার্চ ১৮৮৮ জন্মসাল হিসেবে লিপিবদ্ধ রয়েছে।

নাজিম উদ্দিন খানের ছয় সন্তানের মধ্যে মাত্র তিনজন জীবিত রয়েছেন। বাকিরা বয়সের ভারে অনেক আগেই পৃথিবী ছেড়েছেন। সৌভাগ্যবান এ প্রবীণ ২২ জন নাতি-নাতনি, নাতি-নাতনির ঘরে ১০৬ জন পুতি, পুতির ঘরে ১০৭ জন থুতি এবং এর পরের প্রজন্ম ৭ জনসহ মোট ২৪৮ জন বংশধরকে দেখে গেছেন।

এ প্রবীণের বয়স নিয়ে মানুষের কৌত‚হলের শেষ ছিল না। বয়স নিয়ে মিডিয়ার বদৌলতে বিভিন্ন সময় তিনি দেশবাসীর কাছে আলোচিত হয়েছেন।

সরকারের কা

Facebook Comments