ব্যাংক থেকে সুদে ঋণ নিয়ে বাড়ি করা কি জায়েজ?

5

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

আপনার জিজ্ঞাসার ১৮৮৪তম পর্বে  ঢাকার মোহাম্মদপুর থেকে সুদের বিনিময়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বাড়ি করা জায়েজ কি না, সে প্রসঙ্গে ই-মেইলে জানতে চেয়েছেন স্বাধীন আলম। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা।

প্রশ্ন : আমার আব্বা ব্যাংক থেকে লোন (ঋণ) নিয়ে বাড়ি বানিয়েছিলেন চড়া সুদে। সে ঋণ এখনো আমাদের শোধ করতে হচ্ছে অনেক সুদে। ইসলামের আলোকে এটা কি নাজায়েজ হচ্ছে?

উত্তর : আপনাদের যে কাজটি করণীয়, সেটা হচ্ছে যত দ্রুত সম্ভব এই ঋণ পরিশোধ করে দিয়ে সুদ থেকে বেরিয়ে আসা। কারণ এখান থেকে বেরিয়ে আসা আপনাদের জন্য ওয়াজিব। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কঠিনভাবে সুদকে হারাম করেছেন।

আপনার আব্বা যেহেতু বাড়িটি করে গেছেন, তাই এখন আপনার আব্বাকেও বাঁচানো দরকার।  নিজেরাও বাঁচা দরকার। আর যদি আব্বাকে বাঁচাতে না পারেন, অন্ততপক্ষে নিজেকে বাঁচাতে হবে।

আল্লাহতায়ালা বলেছেন, ‘কু-আনফুসাকুম’।  এখানে প্রথমে নিজেকে বাঁচানোর কথা বলা হয়েছে। এখন আপনি আব্বাকে যদি বাঁচাতে না পারেন তাহলে নিজেকে বাঁচাতে হবে। কিন্তু আপনার তো দুটোই ধ্বংস করার কোনো সুযোগ নেই। তাই এই সুদ থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা আপনাদের করতে হবে। কারণ ইসলামে সুদ কঠিনভাবে হারাম।

কোরআনে বলা হয়েছে যে, ‘যদি এটা না করো তোমরা তাহলে তোমাদেরকে বলে দিচ্ছি তোমরা আল্লাহ এবং তাঁর রাসুলের পক্ষ থেকে যুদ্ধের ঘোষণা নিতে হবে’ (সুরা-আল বাকারা)। সুতরাং এ কাজটি অত্যন্ত কঠিন, যেহেতু ইসলামে কঠিনভাবে হারাম করা হয়েছে।