অন্য নারীর ডিম্বাণু দিয়ে বাচ্চা নেওয়া কি জায়েজ?

4
স্টাফ রিপোর্টার:আমার মেয়ে আল্লাহর রাস্তায় শহীদ হয়েছেন। শুনতেছি কেউ কেউ নাকি আমার মেয়েকে নিয়ে নাটক ও সিনেমা বানানোর প্রস্তুতি নিয়েছেন। দয়া করে আমার মেয়েকে নিয়ে কেউ সিনেমা বা নাটক বানাবেন না।' শুক্রবার বিকালে ফেনীর সোনাগাজীতে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির মা শিরিন আক্তার যুগান্তরকে এসব বলেন। তিনি বলেন, 'নুসরাত শহীদ হয়ে গ

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

আপনার জিজ্ঞাসার রমজানের বিশেষ অনুষ্ঠানের পঞ্চম পর্বে অন্য নারীর ডিম্বাণু নিয়ে স্ত্রীর গর্ভে সন্তান নেওয়ার বিষয়ে ইসলামের অনুমোদন বিষয়ে মিরপুর থেকে টেলিফোনে জানতে চেয়েছেন আবদুর রহমান। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা।

প্রশ্ন : আপনাদের একটি অনুষ্ঠানে এক হুজুরের কাছে একদিন আমি শুনেছি যে, টেস্টটিউব বেবি নেওয়া জায়েজ আছে। তো, এখন আমরা জানতে চাইছি, আধুনিক চিকিৎসায় যদি কোনো মহিলার ডিম্বাণু ম্যাচিউরড না হয় বা ওই ডিম্বাণু থেকে বাচ্চার জায়গোট ফর্ম করতে অসুবিধা হয়, সে ক্ষেত্রে ইসলামে কি অন্য কোনো মহিলার ডিম্বাণু দিয়ে ভ্রূণ সৃষ্টি করে সেই ভ্রূণকে তাঁর স্ত্রীর গর্ভে দিয়ে বাচ্চা নেওয়া যেতে পারে কি না। 

উত্তর : আমরা এ বিষয়টি স্পষ্ট করেছি। যেখানে আমরা বলেছি জায়েজ রয়েছে, সেখানে আমরা বলেছি যে সব ওলামায়ে কেরাম শর্ত করেছেন, স্বামী এবং স্ত্রীর কাছ থেকেই ডিম্বাণু ও শুক্রাণু দুইটা গ্রহণ করে তারপর সেটাকে ফার্টিলাইজ করতে হবে।

কিন্তু যদি স্ত্রীর ডিম্বাণু ম্যাচিউরড না হয়ে থাকে, সে ক্ষেত্রে যদি কোনো আধুনিক চিকিৎসা থাকে, সে চিকিৎসা ব্যবস্থা নিতে হবে। কিন্তু অন্যের ডিম্বাণু নিয়ে যদি সেটাকে ম্যাচিউরড করা হয়, এটি সব ওলামায় কেরামের ঐকমত্যে হারাম।

ডিম্বাণু ও শুক্রাণু হতে হবে অবশ্যই স্বামী ও স্ত্রীর। বাইরে কারো থেকে এর কোনোটাই নেওয়া যাবে না।