গরুর মাংসের কেজি ৩৫০ টাকা, সঙ্গে মুলা ফ্রি

3
স্টাফ রিপোর্টার: শ্রীলংকান সরকার ২০০ আলেমসহ ৬০০ বিদেশিকে দেশ থেকে বের করে দিয়েছে। রোববার দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াজিরা আবেওয়ার্ধেনা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এসব ধর্মীয় ব্যক্তিরা বৈধভাবে শ্রীলংকায় এসেছিলেন। কিন্তু ভয়াবহ এ হামলার পর নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে দেখা গেছে অনেক আগেই তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছে। এজন্য তাদের জরিমানা করে চলে যেতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

নীলফামারীতে শহরজুড়ে মাইকিং করে বিক্রি করা হচ্ছে গরুর মাংস। ৪৬০ টাকা কেজি দরের গরুর মাংস রাতারাতি ৩৫০ টাকায় নেমে এসেছে। সেই সঙ্গে কে কত টাকা কমে মাংস বেচতে পারে তা নিয়ে রীতিমতো প্রতিযোগিতায় নেমেছেন ব্যবসায়ীরা।
মাংসের দাম বেড়ে যাওয়ায় চরম মন্দার মুখে পড়া ব্যবসার চাকা ঘুরাতে শহরের কয়েকজন মাংস ব্যবসায়ী গরুর মাংসের পরিবর্তে মহিষের মাংস বিক্রি শুরু করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
এ নিয়ে প্রথম দিকে খুব একটা সাড়া না মিললেও পিকআপভ্যানে হৃষ্টপুষ্ট মহিষ নিয়ে শহরজুড়ে প্রচারণা চালিয়ে ৩৪০ টাকা কেজি দরে মাংস বিক্রি করে ব্যাপক সাড়া ফেলেন ব্যবসায়ীরা। কয়েকদিনের মধ্যে গরুর মাংসের ও মাছের বাজারের এর প্রভাব পড়ে।
এ অবস্থায় শুরু হয় মাংস ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের নানা রকম ফন্দিফিকির ও ভয়ভীতি প্রদর্শন। এতেও কোনো কাজ না হওয়ায় শেষমেশ গরুর মাংস বিক্রেতাদের মাঝে শুরু হয় প্রতিযোগিতা।
বুধবার নীলফামারী শাখামাছা বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, অনেক ব্যবসায়ী ব্যবসা গুটিয়ে নিলেও কেউ কেউ মাইকিং করে ৩৫০ টাকা দরে মাংস বিক্রি করছেন। তবে কিছু ব্যবসায়ী ক্রেতা টানতে শুরু করেছেন নতুন ফন্দি। ১ কেজি মাংসের সঙ্গে ১ কেজি মুলাও ফ্রি দিচ্ছেন। তবুও তেমন সাড়া পাচ্ছেন না বলে দাবি মাংস ব্যবসায়ীদের।
শাখামাছা বাজারের মাংস ব্যবসায়ী হাসান বলেন, গরুর মাংসের বাজার আগের মতো নেই। ক্রেতা টানতে বিভিন্ন ব্যবসায়ী নানা ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কেউ কেউ গরুর মাংসের পরিবর্তে মহিষের মাংস বিক্রি করছেন। আবার কেউ কেউ মাংসের সঙ্গে অন্য উপকরণ ফ্রি দিচ্ছেন। গরুর মাংসের বাজার মন্দা বললেই চলে।
এএম/আইআই