আরামবাগ স্থানান্তরে যোগ দিতে মেঘ সরান

আরামবাগ স্থানান্তরে যোগ দিতে মেঘ সরান

বুধবার খেলোয়াড়দের নিবন্ধনের চূড়ান্ত দিনে ৩৪ জন খেলোয়াড়কে স্বাক্ষর করার সময় সাম্প্রতিক ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির পরে আসন্ন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে অংশ নেওয়ার বিষয়ে অনিশ্চয়তা শেষ করে আরামবাগ ক্রিড়া সংঘ।
নিরাপত্তা বাহিনী যখন ড্রাইভিং চলাকালীন ক্লাবটিতে একটি ক্যাসিনো পেয়েছিল, তখন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীরাচক্রও নির্ধারিত দিনটিতে ৩৪ জন খেলোয়াড়কে স্বাক্ষর করে তার খেলোয়াড়দের নিবন্ধকরণ সম্পন্ন করেছিল।
ক্লাবের সহ-সভাপতি আজাজ জাহাঙ্গীর তাদের পৃষ্ঠপোষকদের সম্পর্কে আরও কিছু বিবরণ না দিয়ে বলেছিলেন, ‘আমরা স্থানীয় সমর্থক, স্পনসর এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের সমর্থন নিয়ে একটি জটিল পর্যায়ে অতিক্রম করেছি।

এর আগে আরামবাগ বলেছিলেন যে মতিঝিলের বিভিন্ন ক্লাবে অবৈধ ক্যাসিনো চালানোর বিষয়ে সুরক্ষা বাহিনী তার যোগসূত্র খুঁজে পাওয়ার পরে লুকিয়ে থাকা ক্লাব সভাপতি একেএম মমিনুল হক শায়ীদের অনুপস্থিতিতে দল গঠন করা তাদের পক্ষে শক্ত হবে।
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রকের অর্থায়নে মুক্তিজোধা ক্যামেরুনের ফরোয়ার্ড বিয়াগা পল এমিলি, গিনির ফরোয়ার্ড ইসমাইল বাংগুরা, মঙ্গোলিয়ান মিডফিল্ডার নরিতো হাশিগুচি, ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার অ্যালবার্ট ফ্র্যাঙ্ক এবং নাইজেরিয়ার ডিফেন্ডার সিরিল চেতচি ওরিকাউকে নিয়োগ দিয়েছেন।
বিপিএলের শেষ সংস্করণে এমিল আরামবাগের হয়ে খেলেছেন, নঙ্গিফাল এসসি-এর হয়ে বাঙ্গুরা।

মুক্তিযোদ্ধা সভাপতি জহুরুল ইসলাম রোহেল আশ্বাস দিয়েছিলেন যে এই ক্লাবের খ্যাতি রক্ষায় মন্ত্রী একেএম মোজাম্মেল হক তার সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় খেলোয়াড়দের কোনও অর্থ প্রদানের ব্যবস্থা থাকবে না।
‘আমরা আগের সংস্করণের সমস্ত অর্থ পরিশোধ সাফ করে দিয়েছি। প্রতিটি খেলোয়াড় সময়মতো তাদের পেমেন্ট পাবেন। এটি মুক্তিযোদ্ধার [মুক্তিযোদ্ধা] দল। মন্ত্রী দল গঠন এবং এর খ্যাতি বজায় রাখতে সকল উদ্যোগ নিয়েছিলেন। আমাদের যা কিছু করার দরকার তা আমরা করব, ’বললেন রোহেল।

ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন আবাহনী লিমিটেড তাদের আগের সংস্করণ দল থেকে ২৫ জন খেলোয়াড়কে ধরে রেখেছে এবং তিনজন বিদেশী ও দু'জন স্থানীয় খেলোয়াড়কে নতুন করে নিয়োগ দিয়েছে।
নতুন স্থানীয় নিয়োগকারীরা হলেন মিডফিল্ডার সোহেল রানা এবং নাসির হোসেন চৌধুরী এবং বিদেশি নিয়োগকারীরা হলেন ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মাইলসন আলভেস, কিরগিজস্তানি মিডফিল্ডার এডগার বার্নহার্ট এবং মিশরীয় ডিফেন্ডার আলাদিন ইসা।
নাসির বসুন্ধরা কিংসে এক বছর কাটিয়ে ক্লাবে ফিরে আসেন এবং সোহেল আবাহনীতে যোগ দিতে শেখ রাসেল কেসির সাথে প্রথম চুক্তি থেকে সরে আসেন।

গত বারের বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রানার্সআপ শেষ করে দুই বছরের বিরতি শেষে বিপিএলে ফিরেছেন উত্তর বারিধারা।
তারা বিপিএলে দু'বার খেলেছে এবং উভয় অনুষ্ঠানেই মুক্তি পেয়েছিল।
পাঁচ জন বিদেশী খেলোয়াড়সহ বিভিন্ন ক্লাবের ১৩ জন স্থানীয় খেলোয়াড়কে নিয়ে এসে বিসিএল দলের ১২ জন খেলোয়াড়কে রেখে বারিধারা একটি ৩৩ সদস্যের দল গঠন করেছে।

তাদের বিদেশী নিয়োগকারীরা হলেন: শেষ বিপিএলে রহমতগান এমএফএসের হয়ে খেলা গাম্বিয়ান ফরোয়ার্ড ল্যান্ডিং ডার্বো, ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড লিওনার্দো ভিয়েরা লিমা, তাজিক ডিফেন্ডার ফোরকাটজান খাসানবোয়েভ, নাইজেরিয়ার মিডফিল্ডার সাইমন ওবায়োমা চুকওয়ু এবং আইভরি কোস্টের ডিফেন্ডার সাঙ্গারে ইসুফ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net