নৌকা ডুবিয়ে দেওয়ার ইতিহাস আছে : মির্জা আজম

নৌকা ডুবিয়ে দেওয়ার ইতিহাস আছে : মির্জা আজম

আওয়ামীলী দীর্ঘ দিন ক্ষমতায় থাকার কারনে দেশ আজ এ জায়গাতে পৌঁছাতে পেরেছে। দেশ নেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা সম্ভব হয়েছে। এ উন্নয়নে ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে আবারও আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আনতে হবে বলে মন্তব্য করেন মির্জা আজম এমপি। তিনি বলেন, আগামীতে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় না আসলে উন্নয়ন ধারা ব্যাহত হবে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না এলে ২০০১-এর চেয়েও খারাপ অবস্থা হবে মন্তব্য করে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মির্জা আজম এমপি যা বললেন।

আআগামীতে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না এলে ২০০১ সালের চেয়েও খারাপ অবস্থা হবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মির্জা আজম এমপি।
শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।
মির্জা আজম বলেন, আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না এলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন খু/নি জিয়া ছেলে তারেক।সে প্রধানমন্ত্রী হলে আমাদের কি অবস্থা হবে?আজ থেকে ১৩ বছর আগে আমরা ভিক্ষুকের জাতি ছিলাম। আজ আমরা মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হয়েছি। আমাদের আর্থিক অবস্থা পরিবর্তন হয়েছে। আগামীতে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না এলে ২০০১ সালের চেয়েও খারাপ অবস্থা হবে।আপনি জানেন ২০০১ সালের পর আমাদের শামীম ওসমানের মতো জননেতা দেশে থাকতে পারেননি। আমাদের অনেক নেতাকে হ/ত্যা করা হয়েছে। শামীম ওসমানরা দেশে থাকলে তাদেরও একই পরিণতি হতো।

তিনি বলেন, ২৫ বছর পর আজ এখানে সম্মেলন হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’তেও নারায়ণগঞ্জের অনেক অবদানের কথা বলা হয়েছে। দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি এই সোনারগাঁ উপজেলার মধ্য দিয়ে গেছে। আজ আমরা আনন্দিত যে এখানে সম্মেলন হচ্ছে। সোনারগাঁ উপজেলার মানুষ আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনাকে ভালোবাসে।
মির্জা আজম বলেন, আওয়ামী লীগ টানা তিনবার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় রয়েছে উল্লেখ করে মির্জা আজম বলেন, আজ আমরা সবাই অর্থবিত্তে পরিপূর্ণ। ভাবুন তারেক রহমান প্রধানমন্ত্রী হলে কী হবে? আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হোন। এই সাংগঠনিক সক্ষমতার মাধ্যমে আমরা সোনারগাঁও থেকে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করব। আগামী নির্বাচনে যেন এখান থেকে নৌকার প্রার্থী দেওয়া হয়। তবে আপনারা কিন্তু ভেদাভেদ সৃষ্টি করে নৌকা ডুবিয়ে দেওয়ার ইতিহাস আছে। তাই বলি সে বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন।

দলের ভেতর অনৈতিক চর্চার সমালোচনা করে এই সংসদ সদস্য বলেন, আমাদের নতুন ট্রেডিশন শুরু হয়েছে পদ বানিজ্য, মনোনয়ন বানিজ্য। এগুলো করলে দেখবেন শেখ হাসিনার সবে অর্জন বিনষ্ট হয়ে গেছে। তিনি সব দিকে উন্নয়ন করেছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের কিছু কর্মীর কারণে সব অর্জন নষ্ট হয়ে যায়।

কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নবীউল্লাহ হিরু, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান। সংসদে উপস্থিত ছিলেন। মৃণাল ক্রান্তি দাস, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য কায়সার হাসনাত, সোনারগাঁ উপজেলা চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসনাত শহীদ প্রমুখ। বাদল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প বিষয়ক সম্পাদক এসএম জাহাঙ্গীর, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আনিসুর রহমান দিপু প্রমুখ।
প্রসঙ্গত, ঐক্যবদ্ধের মাধ্যমে আগামী নির্বাচনে জয়ী হওয়ার আহ্বান জানান সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মির্জা আজম এমপি। তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় এলে সব অর্জন শেষ হয়ে যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net