কুবিতে দুই ঘন্টা ব্যাপী ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টায় রণক্ষেত্র

কুবিতে দুই ঘন্টা ব্যাপী ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টায় রণক্ষেত্র

ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় আবারও রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। সরেজমিনে দেখা গেছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও কাজী নজরুল ইসলাম হলের ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে শুরু হওয়া দুই ঘণ্টা ব্যাপী এ সংঘর্ষে পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থীরা জানান, পূর্ব ঘটনার জের ধরে শুক্রবার মধ্যরাতের সংঘর্ষের পর দুপুর থেকে ফের উত্তপ্ত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও কাজী নজরুল ইসলাম হলের ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মধ্যে আবারও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে।

এসময় রামদা, রড, হকি স্টিক, দেশীয় অস্ত্র, প্লাস্টিকের পাইপ, ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ দু’পক্ষের মধ্যে কয়েক দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়।

এর আগে, গতকাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে সংঘর্ষ হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাদাৎ মো. সায়েম, বঙ্গবন্ধু হলের ছাত্রলীগকর্মী ইকবাল, রাকিব, অনুপ দাশ, সোহাগ, নজরুল হলের সাকিব হাসান দীপ, আশরাফুল রায়হানসহ দু’পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ৭ জন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নেন। পরে তারা হলে ফিরে আসেন।প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই দুই হলের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে সন্ধ্যায় নজরুল হলের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে মারধর করে বঙ্গবন্ধু হলের এক ছাত্রলীগকর্মী। সে ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাত সাড়ে ১২টার দিকে দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়ায় দুই হলের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় লাঠি, রড হাতে দেখা যায় একাধিক ছাত্রলীগ কর্মীকে।
ঘটনার সময় প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা উপস্থিত হয়ে দুই পক্ষকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করে এবং নেতাকর্মীদের হলে ফিরিয়ে নেয়।
উল্লেখ্য, এর আগে শুক্রবার নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগ কর্মী সেলিম রেজাকে পথ থেকে সরে দাঁড়াতে বলে কাজী নজরুল ইসলাম হল ছাত্রলীগ নেতা ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল রায়হান। নামাজ শেষে রায়হানের কাছে বিষয়টি জানতে চায় বঙ্গবন্ধু হলের সেলিম রেজা, রিফাতসহ কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী। এ সময় দুই হলের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এবং হাতাহাতির ঘটনা ঘটে

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net