আবারো করোনা সন্দেহে কাছে যায়নি স্ত্রী-সন্তানরা, দেয়া হয়নি খাটিয়া

83

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে আব্দুর রহমান (৫২) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। এতে করোনার ভয়ে তার কাছে যায়নি স্ত্রী-সন্তানরা।এদিকে করোনা আক্রান্ত সন্দেহ গ্রামের লোকজন খাটিয়া না দেওয়ায় মাটির ওপর লাশ রেখেই শনিবার সকালে পুলিশ, স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তায় তার দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।মৃত্যু আব্দুর রহমান গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার আরজি খলসি গ্রামের মৃত গমির উদ্দিনের ছেলে। গোবিন্দগঞ্জে উপজেলা চত্বরে তার একটি চায়ের রয়েছে।

থানা সূত্রে জানা গেছে, চায়ের দোকান করে জীবিকা নির্বাহ করা আব্দুর রহমান দীর্ঘদিন থেকে ডায়াবেটিস ও কিডনিজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন। ঈদের পর থেকে তার অসুস্থতা বেড়ে যায়। গত শুক্রবার জ্বর ও গলাব্যথায় তার অসুস্থতা আরও বেড়ে গেলে রাত সাড়ে ১১টার দিকে আব্দুর রহমান মারা যান। কিন্তু মারা যাওয়ার পর তার দুই ছেলে, দুই মেয়ে ও স্ত্রী করোনার ভয়ে মৃত রহমানের কাছে যাওয়া বন্ধ করে দেন।

রাতেই বিষয়টি থানায় জানানো হলে গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও’র পরামর্শে শনিবার সকালে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা ভূমি মসজিদের ইমাম মাওলানা আরিফ বিল্লাহর সহায়তায় মৃত আবদুর রহমানের লাশ দাফন করা হয়। তবে তার মরদেহ বহনের জন্য এলাকাবাসী খাটিয়া দেয়নি বলে জানা গেছে।

গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মেহেদী হাসান জানান, মৃত আব্দুর রহমানের দাফন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। মৃতের পরিবারের সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

Loading...