Categories
এক্সক্লুসিভ

৬০ বিঘার ওপর জমি থাকলে বাজেয়াপ্ত

ব্যক্তি ও পরিবার পর্যায়ে ৬০ বিঘার বেশি জমি অর্জন না করার বিধান রেখে ভূমি সংস্কার আইন-২০২২ প্রণয়ন করা হচ্ছে। দেশের কোনো ব্যক্তি বা পরিবার এর বেশি জমির মালিক হলে অতিরিক্ত জমি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা হবে। বিশেষায়িত শিল্প, জনকল্যাণমুখী কার্যক্রমসহ বিশেষ ক্ষেত্রে ৬০ বিঘার বেশি জমি অর্জনের বিধান রাখা হয়েছে।

ভূমি মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চূড়ান্ত অনুমোদনের সুপারিশ করে আইনের খসড়াটি ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছে। আগামী মন্ত্রিসভায় খসড়াটি উপস্থাপন করা হতে পারে।
ভূমি সংস্কার আইনের খসড়ায় ছয়টি অধ্যায়ে ২৬টি ধারায় দুই থেকে আড়াইশ উপধারা রয়েছে। এর মধ্যে কৃষিজমি অর্জন সীমিতকরণ, স্থায়ী সম্পত্তির বেনামি লেনদেন/হস্তান্তর বন্ধ করা, বাস্তুভিটা, বর্গাধার, সায়রাত মহলের বিষয় প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

ভূমি সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান পিএএ সমকালকে বলেন, ভূমি সংস্কার অধ্যাদেশকে ভূমি সংস্কার আইনে পরিণত করা হচ্ছে। এতে জমির বিতরণ ব্যবস্থাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। এর ফলে মুষ্টিমেয় মানুষ দেশের সিংহভাগ জমির মালিক হওয়ার সুযোগ পাবে না। এ কারণে ব্যক্তি ও পরিবার পর্যায়ে ৬০ বিঘা পর্যন্ত জমি ক্রয় বা অর্জনের সিলিং নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। যারা এর বেশি জমির মালিক হবেন, তাদের অতিরিক্ত জমি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা হবে। তবে সরকার বা সরকারপ্রধানের অনুমতি সাপেক্ষে বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে ৬০ বিঘার ঊর্ধ্বে জমি অর্জনের সুযোগ রাখা হয়েছে।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব প্রদীপ কুমার দাস সমকালকে বলেন, আইনটি প্রণয়নের পর ভূমি মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা-উপজেলা প্রশাসন থেকে সারাদেশে অভিযান পরিচালনা করা হবে।
খসড়া আইনে বলা হয়, কেউ ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমির মালিক হওয়ার বিষয়টি গোপন করলে তাকে অতিরিক্ত জমির মূল্য প্রদান না করেই অতিরিক্ত জমি বাজেয়াপ্ত করা হবে। আর যারা ৬০ বিঘার জমির মালিক হয়ে স্বেচ্ছায় অতিরিক্ত জমির ঘোষণা দেবেন, সরকার তাদের অতিরিক্ত জমি ক্রয় করবে সেখানকার মৌজা রেট অনুযায়ী।

যিনি গোপনে ৬০ বিঘার বেশি জমি সংরক্ষণ ও ভোগদখল করছেন- তাদের ব্যাপারে তথ্য পাওয়া গেলে সরকার অভিযান চালিয়ে ওই ব্যক্তির অতিরিক্ত জমি বাজেয়াপ্ত করবে। দেশের যে কোনো নাগরিক সরকারকে অতিরিক্ত জমির তথ্য দিতে পারবেন।

কেউ ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমির তথ্য সরকারকে অবহিত করলে তার মোট জমির কোন অংশ তিনি নিজের জন্য রাখবেন আর অতিরিক্ত কোন অংশটুকু ছেড়ে দেবেন- এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ তাকে দেওয়া হবে। তার কাছ থেকে পাওয়া জমি ১ নম্বর খতিয়ানভুক্ত হবে। ৩৩ শতাংশে এক বিঘা নির্ধারণ করা হয়েছে।

শতভাগ রপ্তানিমুখী কৃষিপণ্য বা কৃষিজাত পণ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পের ক্ষেত্রে সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমি ক্রয় বা অর্জন করা যাবে। একইভাবে শতভাগ রপ্তানিমুখী বিশেষায়িত শিল্পের জন্য সরকারের অনুমতি নিয়ে ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমি অর্জন করা যাবে। এ ক্ষেত্রে জমির সর্বোচ্চ পরিমাণের বিষয় আইনে উল্লেখ নেই।
কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান অন্যান্য শিল্পকারখানা স্থাপনের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি সাপেক্ষে ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমি অর্জন করতে পারবেন।

খসড়ায় আরও বলা হয়, কোনো ব্যক্তি বা তার পরিবার ৬০ বিঘার অধিক কৃষিজমির মালিক হলে তিনি হস্তান্তর, উত্তরাধিকার, দান বা অন্য যে কোনো উপায়ে নতুন কোনো কৃষিজমি অর্জন করতে পারবেন না। তবে কোনো সংস্থা জনকল্যাণার্থে সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে অতিরিক্ত জমি অর্জন করতে পারবেন। চা, কফি, রাবার বা অন্য ফলের বাগানের জন্যও অতিরিক্ত জমি অর্জনের সুযোগ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া নিজস্ব কারখানায় ব্যবহূত কাঁচামাল উৎপাদনের উদ্দেশ্যে জমি, ওয়াক্‌ফ, দেবোত্তর, ধর্মীয় ট্রাস্ট, দাতব্য কাজে ৬০ বিঘার ঊর্ধ্বে জমি অর্জনের সুযোগ রাখা হয়েছে।

খসড়ায় আরও বলা হয়, কোনো ব্যক্তি তার নিজের সুবিধার্থে অন্য কোনো ব্যক্তির নামে কোনো স্থাবর সম্পত্তি ক্রয় করতে পারবেন না। সরকারের কোনো কর্মকর্তা বা কর্তৃপক্ষ আদালতের আদেশ ছাড়া কাউকে তার বাস্তুভিটা থেকে উচ্ছেদ করতে পারবে না। সরকারের প্রয়োজনে অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে এ আইন প্রযোজ্য হবে না। বর্গাচাষের ক্ষেত্রে জমির মালিক ও বর্গাচাষির মধ্যে নির্ধারিত ফরমে চুক্তি সম্পাদনের কথা বলা হয়েছে। এই চুক্তির বৈধতা পাঁচ বছর পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। কোনোভাবেই এই চুক্তি সম্পাদন ছাড়া কারও জমি বর্গাচাষ করা যাবে না। উৎপাদিত ফসলের ভাগাভাগি বিষয়ে বলা হয়, মালিকানার জন্য জমির মালিক উৎপাদিত ফসলের এক-তৃতীয়াংশ ও বর্গাচাষি তার শ্রমের জন্য এক-তৃতীয়াংশ পাবেন। জমির মালিক ও বর্গাচাষি ফসল উৎপাদনে যে যে পরিমাণ অর্থ খরচ করবেন, সে অনুপাতে বাকি এক-তৃতীয়াংশ পাবেন।

আরও বলা হয়, ভূমি সংস্কার বোর্ড সংশ্নিষ্ট কালেক্টরের মাধ্যমে হাটবাজার, চরাঞ্চলের সরকারি জমি চিহ্নিত করে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার আওতায় আনবে। খাস পুকুর, জলাধার ও সব ধরনের সায়রাত বিদ্যমান অবস্থায় সংরক্ষণ করা হবে। একই সঙ্গে ইজারা প্রদানের মাধ্যমে বেদখল রোধ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.