Breaking News

রাশিয়ার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের ভোট ও শেখ হাসিনার লাভ ক্ষতি

উক্রেনের চারটি অঞ্চল রুশ ফেডারেশনে যুক্ত করার ব্যাপারে জাতিসংঘের নিন্দা প্রস্তাবে ইউক্রেনের পক্ষে ভোট দেয়ায় বাংলাদেশ কোনো চাপে পড়বে না বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷তাদের কথা, এই ভোটের প্রতীকী গুরুত্ব থাকলেও এর প্রায়োগিক কোনো গুরুত্ব নেই৷
একই সঙ্গে বাংলাদেশ সার্বভৌমত্ব এবং রাষ্ট্রীয় অখণ্ডতার প্রশ্নে তার নীতি তুলে ধরতে পেরেছে বলেও মনে করেন তারা৷ এটা কূটনৈতিক দিক দিয়ে একটি ভালো অবস্থান বলেও মনে করছেন তারা৷

নিন্দা প্রস্তাবটি বুধবার রেকর্ডসংখ্যক ভোটে সাধারণ পরিষদের বিশেষ অধিবেশনে পাশ হয়েছে৷ ১৪৩টি দেশ প্রস্তাবের পক্ষে (ইউক্রেনের পক্ষে) এবং রাশিয়ার বিপক্ষে ভোট দিয়েছে৷ ভারত ও চীনসহ ৩৫টি দেশ ভোট দেয়া থেকে বিরত এবং চারটি দেশ প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দিয়েছে৷ আলবেনিয়ার পক্ষ থেকে আনা এই প্রস্তাবের ভোটাভুটি প্রক্রিয়া নিয়ে প্রস্তাবের ব্যাপারে বাংলাদেশ ভোটদানে বিরত ছিল৷ এটা বাংলাদেশের ইউটার্ন কিনা জানতে চাইলে সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক বলেন, ‘‘ইউটার্ন বলা যাবে না৷ বাংলাদেশ ইস্যুভিত্তিক তার অবস্থানের জানান দিচ্ছে৷’’

বাংলাদেশ ইস্যুভিত্তিক তার অবস্থানের জানান দিচ্ছে: সাবেক রাষ্ট্রদূত শহীদুল হক

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছে৷ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে, সার্বভৌমত্ব, আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি সম্মান, সব বিরোধের শান্তিপূর্ণ নিষ্পত্তি, জাতিসংঘ সনদের উদ্দেশ্য এবং নীতিগুলো অবশ্যই সবাইকে মেনে চলতে হবে৷ বাংলাদেশ আরো বিশ্বাস করে, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সীমানার মধ্যে যে-কোনো দেশের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে সম্মান করা উচিত৷

ইউক্রেনের মতো ইসরায়েলের ফিলিস্তিনি এবং অন্যান্য আরব ভূমি দখলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অনুরূপ অভিন্ন অবস্থান নেয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপরও জোর দিয়েছে বাংলাদেশ৷

বিবৃতিতে বলা হয়, ইউক্রেনে চলমান সংকটের জন্য বাংলাদেশ অত্যন্ত উদ্বিগ্ন৷ যুদ্ধ, নিষেধাজ্ঞা, পাল্টা নিষেধাজ্ঞা কোনো দেশের জন্যই ভালো নয়৷ বাংলাদেশ মনে করে, দ্বন্দ্ব নিরসনের সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে সংলাপ ও কূটনীতি৷

বাংলাদেশ এ পর্যন্ত ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার ইস্যু নিয়ে জাতিসংঘে চার বারের মধ্যে দুইবার প্রস্তাবের পক্ষে এবং দুইবার ভোটদানে বিরত থাকে৷ গত ২ মার্চ রাশিয়ার হামলা বন্ধের প্রস্তাবে ভোটদানে বিরত ছিল বাংলাদেশ৷

বাংলাদেশ কোনো বলয়কে চিন্তা করে অবস্থান নিচ্ছে না: অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘‘সর্বশেষ যে প্রস্তাব নিয়ে ভোট হলো, সাধারণ পরিষদের এই ভোটের কোনো ইমপ্যাক্ট নাই৷ প্রতীকী গুরুত্ব আছে৷ আর নিরাপত্তা পরিষদে তো আগেই এটা পাস হয়নি৷ ভেটোর মুখে পড়েছে৷ সাধারণ পরিষদের এই ভোট নিয়ে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন করেছিলেন৷ তারা চাচ্ছিলেন প্রতীকী হলেও এই নিন্দা প্রস্তাবটি যেন সর্বোচ্চ ভোটে পাস হয়৷ তারা একটা রেকর্ড রাখতে চায়৷ আর বাংলাদেশ বাই মেরিট বিষয়টি দেখেছে৷’’

তার কথা, ‘‘প্রথমবার বাংলাদেশ ভোট দেয়ায় বিরত ছিল, কারণ, তখন পুরো দায় রাশিয়ার ওপর চাপানো হয়৷ দ্বিতীয়টা ছিল মানবাধিকারের বিষয়৷ তখন বাংলাদেশ পক্ষে ভোট দিয়েছে৷ তৃতীয়টা রশিয়াকে হিউম্যান রাইট কাউন্সিল থেকে বাদ দেয়ার প্রশ্নে বাংলাদেশ ভোট দানে বিরত থাকে৷ আর সর্বশেষ বিষয়টি বাংলাদেশ দেখেছে স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের দিক থেকে, তাই পক্ষে ভোট দিয়েছে৷ এরপর যে অবার অন্য ইস্যুতে বাংলাদেশ ভিন্ন অবস্থান নেবে না তা কিন্তু বলা যায় না৷’’

তার কথা, ‘‘এটা দিয়ে বোঝা যায় যে, বাংলাদেশ কোনো বলয়কে চিন্তা করে অবস্থান নিচ্ছে না৷ আগে দেখা যেতো ভারত যে অবস্থান নেয় বাংলাদেশও সেই অবস্থান নেয়৷ ইউক্রেন যুদ্ধের ব্যাপারে সেটা কিন্তু হয়নি৷ ৮০ বা ৯০-এর দশকের বাংলাদেশ আর এখনকার বাংলাদেশ কিন্তু এক নয়৷ তা না হলে জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলে বাংলাদেশ এত ভোটে জয় পেতো না৷’’

তারপরও রাশিয়ার দিক থেকে কোনো চাপ আসবে কিনা- এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমার মনে হয় না কোনো চাপ আসবে৷ কারণ, রাশিয়াও জানে বাংলাদেশ ছোট দেশ৷ অ্যামেরিকাসহ পশ্চিমা দেশগুলো নানা রকম ফোন-টোন করে ভোট নিয়েছে৷ আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিন্তু একই সময়ে কিরগিজস্তানে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন৷ ওয়ান টু ওয়ান বৈঠক হয়েছে৷ রাশিয়ার না বোঝার কোনো কারণ নেই৷’’

সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হকও মনে করেন, এই ভোট নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্কের অবনতির কোনো আশঙ্কা নেই৷ কারণ, সাধারণ পরিষদের এই ভোটের কোনো গুরুত্ব নেই, কোনো বাইন্ডিং নেই৷ তিনি বলেন, ‘‘এবার সর্বোচ্চ সংখ্যক ভোট রাশিয়ার বিরুদ্ধে৷ রাশিয়ার বিরুদ্ধে আগে যারা ভোট দিয়েছে, তাদের সঙ্গে কিন্তু রাশিয়া ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ করেনি৷ বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ রাশিয়ার আরো অনেক বিনিয়োগ ও ব্যবসা আছে৷ তারা এটা বোঝে৷ ফলে এ নিয়ে সম্পর্ক খারাপ হবে না৷ বাংলাদেশ তো ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যাচ্ছে৷ তাতে কি সম্পর্ক খারাপ হচ্ছে কারুর সাথে?’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘কূটনৈতিক দিক দিয়ে এবার আমি বলবো ভালোই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ৷ বাংলাদেশ একটি ছোট দেশ৷ এক দিকে রাষ্ট্রীয় অখণ্ডতা ও স্বার্বভৌমত্বের পক্ষে বাংলাদেশ অবস্থান নিয়েছে৷ নয়তো অন্য কোনো দেশ বাংলাদেশে ঢুকে পড়লে আমরা কী বলতাম? আকেটি হলো, এই ভোটের প্রয়োগের দিক থেকে কোনো গুরুত্ব নেই৷ বাংলাদেশের অবস্থানটি তাই নিরাপদ বলা যায়৷’’

Check Also

‘আমার মেয়েকে বিবস্ত্র করে যৌন হেনস্তার মাধ্যমে জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি আদায় করে পিবিআই’

ফেনীর সোনাগাজীতে চাঞ্চল্যকর নুসরাত হত্যামামলাটি নতুন দুঃখ হয়ে ফিরে এলো। তার প্রাণ যাওয়ার পর সমাজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.