সিলেট সিটি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ইঙ্গিত দিলেন আরিফ

IPL ের সকল খেলা  লাইভ দেখু'ন এই লিংকে  rtnbd.net/live

আগামী ২১ জুন অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ইঙ্গিত দিলেন বর্তমান মেয়র বিএনপির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য আরিফুল হক চৌধুরী। তবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আগামী ২০ মে রেজিস্টারি মাঠে নগরবাসীর সামনেই দিতে চান তিনি। সোমবার দুপুরে জাতীয় মে দিবস উপলক্ষ্যে সিলেট জেলা ও মহানগর শ্রমিক দলের র‌্যালি পূর্ববর্তী সমাবেশে তিনি এ ঘোষণা দেন। এ সময় তিনি সিটি নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতির সমালোচনা করে তা বাতিলের দাবি জানান। মে দিবস উপলক্ষ্যে সিলেট জেলা ও মহানগর শ্রমিকদলের আয়োজনে র‌্যালিতে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন সিসিকের বর্তমান মেয়র বিএনপির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য আরিফুল হক চৌধুরী। র‌্যালির আগে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ হয় নগরীর রেজিস্টারি মাঠে। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, আগামী যে সিটি নির্বাচন ঘোষণা করা হয়েছে ভোটের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে সেই নির্বাচনে বিএনপি যাচ্ছে না; তবে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কেন যাবে সেই বিষয়ে আগামী ২০ মে সিলেট রেজিস্টারি মাঠে সমাবেশ ডেকে স্পষ্ট করা হবে বলে জানান আরিফুল হক চৌধুরী। এ সময় তিনি ইভিএম পদ্ধতির সমালোচনা করতে গিয়ে বলেন, সিটি নির্বাচন একটি প্রহসনের নির্বাচন করতে চায় নির্বাচন কমিশন। যেখানে জাতীয় ভাবে সারা দেশে জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে, সেখানে আবার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইভিএম দেওয়া হয়েছে। এই ইভিএম হচ্ছে তাদের মেকানিজমের অন্যতম বিষয়। যে নির্বাচনে আপনারা আপনাদের পছন্দের লোকদের ভোট দিবেন সেই ভোট অন্য পাত্রে চলে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। আমরা দেখতে পাই এই মহানগরীর জনগণ ইভিএমের সঙ্গে কোনোভাবেই পরিচিত নয়। কাজেই এই নির্বাচন কমিশনকে বলব যদি তারা ফ্রি এন্ড ফেয়ার ইলেকশন করতে চায়, জনগণের বিরুদ্ধে কিছু হলে এর দায় দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনকেই বহন করতে হবে। নির্বাচন কমিশন তাদের চোখ থাকতে যদি অন্ধ হয়ে যায় তবে কিছু বলার নেই। তিনি বলেন, যে ইভিএম প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে সেই ইভিএম দিয়ে সিটি নির্বাচন মানি না। সিটি নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতি বাতিল করতে হবে। ইভিএম কোনো ভোট মানি না। মেয়র আরিফ বলেন, সিলেটের মানুষ অধিকার আদায়ে সব সময় সোচ্চার। আন্দোলন করে রেফারেন্ডামের মাধ্যমে পূর্ব বাংলার সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল সিলেটের মানুষ। বক্তব্যে মেয়র অভিযোগ করে বলেন, সিটি নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যেই সিলেট মহানগরীর ভিতরে প্রশাসনিক রদবদল চলছে। নতুন করে প্রশাসনে যারা সিলেটে এসেছেন তাদের উদ্দেশ্যে আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সিলেটের মাটিতে ওলি আউলিয়ারা ঘুমিয়ে আছেন, এটি আধ্যাত্মিক নগরী। এই নগরীতে অন্যায় করে কেউ অতিতে পার পায়নি, ভবিষ্যতেও পার পাবে না। তিনি বলেন, প্রশাসনে যারা আসছেন তাদের সব তথ্য সংগ্রহ হচ্ছে। আওয়ামীলীগের প্রার্থীকে উদ্দেশ্য করে আরিফুল হক চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, সিলেট মহানগরীর রাজনৈতিক নেতারা নেতৃত্ব দিতে জানে, বাইরে থেকে কাউকে ভাড়া করে নিয়ে এসে মহানগরীর মানুষকে দাস বানানো মানবে না নগরীর মানুষ। বক্তব্যের শেষে আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, গত ১০ বছর নগরবাসীর সেবা করেছেন। ২০ ঐতিহাসিক রেজিস্টারি মাঠে প্রতিটি ওয়ার্ডের মুরুব্বি ও যুবকদের উপস্থিতির আহ্বান জানিয়ে তাদের সামনেই তিনি তার অবস্থান পরিষ্কার করবেন বলে জানান আরিফুল হক চৌধুরী। awesome)

Check Also

রাশিয়ার ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে জি৭, লক্ষ্য জ্বালানি ও বাণিজ্য

রাশিয়ার ওপর বিভিন্ন সময় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ধনী দেশগুলোর জোট জি৭, তবে দেশটি নানাভাবে তা …