গাজীপুরে আ.লীগ-বিএনপির নেতাকর্মীদের বহিষ্কারের হিড়িক

IPL ের সকল খেলা  লাইভ দেখু'ন এই লিংকে  rtnbd.net/live

দলীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গিয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে অংশ নেওয়ায় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বহিষ্কারের হিড়িক পড়েছে। উভয় দলের সন্দেহভাজন নেতাকর্মীরা রয়েছেন কড়া নজরদারিতে। সন্দেহভাজনদের মোবাইল ফোন খতিয়ে দেখার ঘটনাও ঘটছে। এতে তাদের মধ্যে পারস্পারিক সম্পর্কের দূরত্ব তৈরি হচ্ছে। বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হচ্ছেন অনেক নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর সমর্থক তৃণমূল নেতাকর্মীরা বিভিন্ন ভাবে নাজেহাল ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে। এদিকে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় বিএনপির হাইকমান্ড কড়া নির্দেশনা দিয়েছে এবং ৩০ জনকে শোকজ করার পাঁচ দিন পর ২৯ নেতাকর্মীকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। এতে নড়েচড়ে বসেছেন মহানগর বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তারা কারোর পক্ষে সরাসরি নির্বাচনী মাঠ এড়িয়ে চলছেন। যারা দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে নির্বাচন থেকে বিরত রয়েছেন তাদের কেন্দ্র থেকে ধন্যবাদ জ্ঞাপনপত্রও দেওয়া হচ্ছে। এসব বহিষ্কারের ঘটনায় তৃণমূলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও এ বহিষ্কারের পক্ষে ও বিপক্ষে বিভিন্ন মতামত ব্যক্ত করতে দেখা গেছে। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে অংশ নিয়ে বহিষ্কৃতদের তিরস্কার আবার দলের সিদ্ধান্তকে মানায় সাধুবাদ জানাতে দেখা গেছে। এদিকে জাহাঙ্গীর আলমের মা স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জায়েদা খাতুনের পক্ষে নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান কর্তৃক ১৫ মে স্বাক্ষরিত চিঠিতে মাইনুল হোসেন মোল্লা মঈনকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়। কিন্তু মাইনুল হোসেন মোল্লা মঈন যুগান্তরকে জানান, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আমাকে বহিষ্কার করেছে, চিঠি দেখেছি কিন্তু আমি ছাত্রলীগের কোনো সদস্য নই। এদিকে গত ১৪ মে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আতাউল্যাহ মণ্ডল স্বাক্ষরিত চিঠিতে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয় মহানগরের ৩১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী ও ওই ওয়ার্ডের আহবায়ক নূরুল ইসলাম তিতুমীরকে। এছাড়া ১২ মে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সঞ্জিত কুমার মল্লিক (বাবু) ও সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন এর সাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয় আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী আজমত উল্লা খানের নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য ও জনসম্মুখে প্রচারণা চালানো ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আওতাধীন ৯নং ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক জমশের আলীকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হল। এছাড়াও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রিফাত কামাল হিমেল ও শেখ মো. রুবেল রানাকে একইভাবে বহিষ্কার করা হয়। এ ব্যাপারে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন বলেন, দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নেওয়ার সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে সাংগঠনিক ব্যবস্থা হিসেবে আমরা এ পর্যন্ত ৪ জনকে বহিষ্কার করেছি। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ মণ্ডল বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে যারা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন আমরা তাদের তালিকা প্রস্তুত করছি। এ তালিকা যাচাই-বাছাই করে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বহিষ্কারের নোটিশ প্রদান ছাড়াও যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে তাদেরকে মৌখিকভাবে সতর্ক করা হচ্ছে এবং সন্দেহভাজন নেতাকর্মীদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে। awesome)

Check Also

রাশিয়ার ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে জি৭, লক্ষ্য জ্বালানি ও বাণিজ্য

রাশিয়ার ওপর বিভিন্ন সময় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ধনী দেশগুলোর জোট জি৭, তবে দেশটি নানাভাবে তা …