চীনের তৈরি সর্বাধুনিক রণতরী পেল পাকিস্তান

137

সামরিক ও কৌশলগত সম্পর্কের অংশ হিসাবে পাকিস্তানকে অত্যাধুনিক টাইপ-০৫৪এ ক্লাস ফ্রিগেটের চারটি যুদ্ধ জাহাজ দিচ্ছে চীন। রোববার এর প্রথমটি হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি তিনটি ২০২১ সালের মধ্যে হস্তান্তরের কথা রয়েছে। যে কোনও দেশের জন্য এটি চীনের তৈরি সবচেয়ে বড় ও উন্নত যুদ্ধজাহাজ।

পাকিস্তান নৌবাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘জাহাজগুলোতে ভ‚মিতে, পানির নীচে এবং আকাশে নিক্ষেপযোগ্য অত্যাধুনিক ক্ষেপনাস্ত্র সজ্জিত করা হয়েছে। এই জাহাজগুলো আমাদের দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে শান্তি ও সুরক্ষা বজায় রাখতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে।’ বিবৃতিতে জাহাজের ব্যয়ের কথা উল্লেখ করা হয়নি, তবে প্রতিবেদনে অনুমান করা হয়েছে যে, প্রতিটির জন্য ৩৫ কোটি মার্কিন ডলারেরও বেশি খরচ হয়েছে।

জাহাজগুলো পাকিস্তান নৌবাহিনীর বহরের সবচেয়ে বড় এবং প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত সংযোজন হবে এবং ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলায় তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করবে। চীনা নির্মাতা আশা করছেন যে, ২০২১ সালের মধ্যে তারা চারটি জাহাজই পাকিস্তানে পৌঁছে দিতে পারবেন, যা চীনা গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, পাকিস্তান নৌবাহিনীর যুদ্ধ ক্ষমতা ‘দ্বিগুণ’ করে দেবে। ২০১৭ সালে ইসলামাবাদ চায়না শিপবিল্ডিং ট্রেডিং কোম্পানীর (সিএসটিসি) সাথে দুটি টাইপ-০৫৪ এ/পি রণতরী নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর করে। পরের বছর আরো দুইটি রণতরী নির্মাণের চুক্তি করে পাকিস্তান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে পাকিস্তানের নৌবাহিনী প্রধান কমোডর আফজার হুমায়ুন একে ‘প্রতিরক্ষা খাতে পাকিস্তান-চীনের নতুন যুগ’ বলে অভিহিত করেন। তিনি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ভেতরেও নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাওয়ায় নির্মাতা কোম্পানীর প্রতি বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

পাকিস্তানের জন্য চীনের এত আয়োজন মূলত চীর প্রতিদ্ব›দ্বী ভারতকে ঠেকাতে বলে মনে করছেন সামরিক বিশ্লেষকরা। একদিকে পাকিস্তানের সাথে ভারতের কাশ্মির সমস্যা অন্যদিকে ভারতীয় সীমান্তে চীনের ব্যাপক উপস্থিতি। তারই মধ্যে আবার নেপালের ভ‚মি দাবি। সব মিলিয়ে ভূরাজনৈতিক দিক দিয়ে বেশ চাপে ভারত এমনটাই মতামত সামরিক বিশ্লেষকদের।

বেইংজিয়ের সাথে অর্থনৈতিক ও প্রতিরক্ষা খাতের অন্যতম অংশীদার ইসলামাবাদ ২০১৬ সালে ভারতের সাথে পাল্লা দিতে আটটি চীনা ইয়ান শ্রেণীর টাইপ-০৪১ ডিজেল সাবমেরিন ক্রয়ের জন্য পাঁচ বিলিয়ন ডলারের চুক্তি করে। যা ২০২৮ সাল নাগাদ পাকিস্তানের হাতে পৌঁছাবে। সূত্র : ভযেস অব আমেরিকা।