Breaking News

প্রধানমন্ত্রী ভারত গেছেন ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতেঃ

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী ভারত গেছেন ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে। এবার ভারত শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় থাকার নিশ্চয়তা দেয়নি।

এবারের সফরের পর আওয়ামী লীগ বুঝেছে তাদের সঙ্গে পৃথিবীর কেউ নেই। একজন প্রতিমন্ত্রী বিমানবন্দরে রিসিভ করার পরেও তিনি নৃত্যে অংশ নেন। তিনি কিছুই আনতে পারেননি ভারত থেকে।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বর্তমান রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং দ্রব্যমূলেরে ঊর্ধ্বগতিসহ দেশের সার্বিক পরিস্থিতি-শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) আলোচনা সভার আয়োজন করে।

তিনি বলেন, সরকার যারা গুলি করে সেই মায়ানমারের সঙ্গে সমঝোতার কথা বলে আর দেশের বিরোধী দলের সঙ্গে কেন সমঝোতা করছে না। মানুষকে মিথ্যা কথা বলে এরা বোঝাতে চায়। মানুষ তাদের বুঝবে না আর। সরকার পড়ে যাবে। তারা জনগণের কোনো সমস্যার সমাধান দিতে পারছে না। বিদেশের কোনো সরকার তাদের সঙ্গে নেই, যাদের ওপর নির্ভর করতো। অতএব এটাই সময় সরকারকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়ার।

মান্না বলেন, বিরোধী দলগুলোর মধ্যে ঐক্য হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনে যাবে না। ইসলামি দলগুলোকে অনুরোধ করবো তারা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার কথা বলুক। আমরা একটি অর্ন্তবর্তীকালীন সরকার প্রতিষ্ঠায় একমত হয়েছি। আলোচনা আরো হবে। আশা করছি এই আলোচনা সফল হবে এবং লক্ষ্য বাস্তবায়ন হবে।

১৪ বছর ধরে একা একা আন্দোলন করে কোনো ফল আসেনি। তাই সবাইকে নিয়ে আন্দোলনে যেতে হবে। এখনই সময় আন্দোলন করার। সময় বুঝে আন্দোলনে নামতে হবে।

আলোচনা সভায় এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, জামায়াতে ইসলামির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আবদুল হালিম, নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন ও জাগপার সহ সভাপতি রাশেদ।

Check Also

পরীক্ষা স্থগিতের বিজ্ঞপ্তি ভুয়া, সতর্কতায় মাউশির গণবিজ্ঞপ্তি

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) নাম ব্যবহার করে মিথ্যা বিজ্ঞপ্তি বা নোটিশ প্রচার করা হচ্ছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.