নিখোঁজের তিন দিন পর ভারত থেকে লাশ ফিরল মনিরের

IPL ের সকল খেলা  লাইভ দেখু'ন এই লিংকে  rtnbd.net/live

নিখোঁজ হওয়ার তিন দিন পর ভারত থেকে লাশ হয়ে ফিরলেন রাজমিস্ত্রি মনির হোসেন (৪৩)। বৃহস্পতিবার দুপুরে শেরপুরেরনালিতাবাড়ী উপজেলার নাকুগাঁও স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে বিজিবি বিএসএফ পতাকা বৈঠক শেষে তার কফিনবন্দি লাশ হস্তান্তর করা হয়। নিহত মনির হোসেনের বাড়ি শ্রীবরদী উপজেলার রাণীশিমুল ইউনিয়নের খাড়ামোরা গ্রামে। তিনি গ্রামের মৃত মনসুর আলীর ছেলে। নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, মনির হোসেন গত সোমবার (১ মে) নিজ বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন। পরিবারের লোকজন খোঁজাখুজির একপর্যায়ে শ্রীবরদী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে জানতে পারেন তিনি ভারতের মেঘালয় রাজ্যের ওয়েস্ট গারোহিল জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সীমানা পিলার ১১১৬ নম্বর এলাকায় তার লাশ হস্তান্তর নিয়ে বিজিবি বিএসএফের মধ্যে পতাকা বৈঠক হয়। বিজিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়, মনির হোসেন গত পহেলা মে সোমবার রাত ১২টার দিকে ভারত-বাংলাদেশ সীমানা অতিক্রম করে ভারতে অনুপ্রবেশ করেন। এ সময় ভারতীয় নাগরিকরা তাকে আটক করে পিটিয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় রাস্তায় ফেলে রাখেন। খবর পেয়ে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের ওয়েস্ট গারোহিল জেলার বারাঙ্গাপাড়া থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ওয়েস্ট গারোহিল হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।পতাকা বৈঠক শেষে ভারতীয় পুলিশ মনিরের কফিনবন্দি লাশ বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। পরে নালিতাবাড়ী ও শ্রীবরদী থানা পুলিশ নিহতের ছোট ভাই মিজানুর রহমান ও ছেলে মাজিদুল ইসলামের কাছে লাশ বুঝিয়ে দেয়।লাশ হস্তান্তরের সময় বাংলাদেশের পক্ষে শেরপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার (নালিতাবাড়ী সার্কেল) রায়হানা ইয়াসমীন, নালিতাবাড়ী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমদাদুল হক, শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার বিশ্বাস, ময়মনসিংহ বিজিবির ৩৯ ব্যাটালিয়নের হাতিপাগার ক্যাম্প কমান্ডার নায়েক সুবেদার ওবায়দুর রহমান ও ভারতের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন মেঘালয় রাজ্যের তুড়া জেলার ডালু থানার ওসি দীনবন্ধু বর্মণ ও বিএসএফের কর্মকর্তারা। পরে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে জেলা পুলিশ। শেরপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান জানান, মনির আহত অবস্থায় ভারতের ঢালু প্রদেশের একটি স্থানে পড়েছিল। খবর পেয়ে ১ মে রাতে মনিরকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে ঢালু থানা পুলিশ। ২ মে ভারতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মনিরের মৃত্যু হয়। ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে কী কারণে মনিরের মৃত্যু হয়েছে। ভারতের হাসপাতালে লাশের ময়নাতদন্ত হলেও কী কারণে তার মৃত্যু হয়েছে সেটা উল্লেখ নেই। তাই মনির কী কারণে মারা গেছেন সেটা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। awesome)

Check Also

শাকিব খান থাকতে আমার কোনো টেনশন নেই: অপু বিশ্বাস

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান কাজের মাধ্যমে যেমন খবরের শিরোনামে থাকেন, তেমনি চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস ও …