আমেরিকা জয় করে অন্য মাত্রায় ড. বেনজীর আহমেদ

আমেরিকা জয় করে অন্য মাত্রায় ড. বেনজীর আহমেদ

কয়েকদিন আগে বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ জাতিসংঘে একটি সম্মেলনে যোগ দেন এবং এ নিয়ে অনেক রাজনৈতিক নেতারা নানা ধরণের নেতিবাচক মন্তব্য করেছিলেন। কারন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তিনি যখন র‍্যাবের প্রধান হিসেবে ছিলেন। তার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পর তিনি জাতিসংঘে সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আগে তিনি সেখানে গেলে কী হবে বা তাকে সেখানে কীভাবে গ্রহণ করা হবে সে বিষয়ে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়. তবে সবকিছু ছাপিয়ে তিনি বেশ সফলভাবে সবকিছু সম্পন্ন করে এসেছেন। এবার তার সফর নিয়ে বাংলাদেশের সুপ্রিমকোর্টের একজন প্র্যাকটি
সিং আইনজীবীর একটি নিবন্ধ হুবুহু তুলে ধরা হলো-

বিশ্বশক্তির সমন্বয়ের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য এবং জাতীয় ও জাতিসংঘ পুলিশিংকে আরও সক্রিয় করার জন্য ৩১ আগস্ট থেকে ১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দফতরে একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। থার্ড ইউনাইটেড নেশনস চিফস অফ পুলিশ সামিট (UNCOPS 2022) শীর্ষক এই সম্মেলনে জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মন্ত্রী, পুলিশ প্রধান এবং আঞ্চলিক ও পেশাদার পুলিশ সংস্থার সিনিয়র প্রতিনিধিরা একত্রিত হন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি ও বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক মো. বেনজির আহমেদ বিপিএম (বার) ৯০ টিরও বেশি দেশের মন্ত্রী ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে এতে যোগ দেন।

বাংলাদেশের জনগণ অবশ্যই প্রধানমন্ত্রীর জ”/ঙ্গিবাদ, নিরাপত্তা হুমকি ও স”ন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতির জন্য গর্বিত। দক্ষ, মৃদুভাষী, নম্র এবং সাহসী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এবং আইকনিক পুলিশের মহাপরিদর্শক ডঃ বেনজীর আহমেদ ইউএনকপ ২০২২ সম্মেলনে বিশ্বব্যাপী পুলিশ নির্বাহীদের একটি মঞ্চের সামনে প্রধানমন্ত্রীর এই নীতিগত সিদ্ধান্তের সফলতার সাথে পুনরাবৃত্তি করেছিলেন।

আমার এই নিবন্ধটি বেনজীর আহমেদের আমেরিকা সফরের ওপর আলোকপাত করা হয়েছে। সব মিলিয়ে, এটি ছিল পুলিশ প্রধানের একটি উল্লেখযোগ্য সফর, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের একটি যুগান্তকারী সফর।
এমন এক সময়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেলেন, যখন সঠিক, খাঁটি ও যাচাইকৃত তথ্য ছাড়াই আইজিপির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রবিরোধী প্রচারণা চালাচ্ছে দেশের ভেতরে ও বাইরে। তারা তার উপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করছে এবং বিভ্রান্তিকর, দূষিতভাবে উদ্দেশ্যমূলক তথ্য এক বা অন্য উপায়ে ছড়িয়ে দিচ্ছে।
এটি আমাদের ইংরেজ লেখক উইলিয়াম হ্যাজলিটের বিখ্যাত উক্তিটি স্মরণ করিয়ে দেয়: ‘একমাত্র পাপ যা ক্ষমা করা যায় না তা হল অসারতা; কেননা মুনাফিকের তওবাও মুনাফেকী।

নিউইয়র্কে ড. বেনজির আহমেদ মার্কিন সম্প্রদায়কে তার অবস্থান এবং যুক্তরাষ্ট্রে উপস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করেছেন, যার ফলে তার বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কারণ এই নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের রাষ্ট্রবিরোধীদের দীর্ঘদিনের কাঙ্খিত অসৎ উদ্দেশ্য উপলব্ধি করতে সহায়তা করছে। এটি আমাদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা জর্জ ওয়াশিংটনের অমর বাণীর কথা মনে করিয়ে দেয়: ‘একজন মানুষ তার সহজাত স্বাধীনতার অপব্যবহার করতে পারে- এমন খোঁড়া ধারণার বশবর্তী হয়ে সেই মানুষকে তার প্রাকৃতিক স্বাধীনতা থেকে তাকে বঞ্চিত করা একটি অন্যায্য এবং অযৌক্তিক ঈর্ষার নামান্তর।’
আজকে দেশের অনেক মানুষ বিশ্বাস করে যে ডক্টর বেনজীর আহমেদের জন্ম হয়েছিল নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য, জয় করতে এবং বিভ্রান্তিকর তথ্যদাতাদের ঠেকানোর জন্য। পেশাগতভাবে, নিউইয়র্কের বাঙালি সম্প্রদায়ের দ্বারা প্রদত্ত একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তার সর্বপ্রকার ভাষণ আমাদের নিউইয়র্কের প্রাক্তন গভর্নর অ্যান্ড্রু মার্ক কুওমোর বক্তৃতার কথা মনে করিয়ে দেয়: ‘সরকার প্রায়শই জনগণের চিৎকারের আগে লবিস্টদের ফিসফিসানির জবাব দেয়।’

ড. আহমেদ যখন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দর্শন ও নীতির কথা বলেন, তখন তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাগরিক ও দেশের কল্যাণে গৃহীত বৃহত্তর উন্নয়নমূলক উদ্যোগ, কর্মসূচি ও প্রকল্পের কথা বলেন।
দেশ ছাড়াও জাতিসংঘের ড. আহমেদ আমাদের কাছে দেশপ্রেম, গণতন্ত্র, উদারনীতি ও উন্নয়নের অগ্রগামী নায়ক হিসেবে আবির্ভূত হন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তার দীর্ঘ কর্মজীবন এবং অনন্য একাডেমিক প্রচেষ্টার কারণে, তিনি বাংলাদেশ এবং জাতিসংঘ কর্তৃক নির্বাচিত সবচেয়ে মেধাবী সিভিল সার্ভিস অফিসারদের মধ্যে একজন যা অনেক গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনমূলক সংস্কার বিষয় এবং এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য। এটা মোটেও অত্যুক্তি হবে না, তিনি যখন কথা বলেন, একজন দার্শনিকের মতো কথা বলেন, হার্ভার্ডের অধ্যাপকের মতো কথা বলেন, যখন তিনি পুলিশিং নিয়ে কথা বলেন, তখন তিনি উইলিয়াম ব্র্যাটনের মতো কথা বলেন। এমনকি ভবিষ্যতে, যেমন হেলেন কেলার বলেছেন, যদি আপনি আপনার মুখ সূর্যের আলোতে রাখেন তাহলে আপনি ছায়া দেখতে পাবেন না।

দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গির পাশাপাশি পশ্চিমা উদারতাবাদের প্রতি ড. বেনজীর আহমেদের সমর্থন সন্দেহাতীত কারণ তিনি কয়েক বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করেছেন, পড়াশোনা করেছেন এবং বসবাস করেছেন। নিউইয়র্কে থাকাকালে আমরা উদারনৈতিক মূল্যবোধ, সাংস্কৃতিক গতিশীলতা, বৈচিত্র্য এবং অন্যদের প্রতি শ্রদ্ধার বিষয়ে তার তীব্র অনুরাগ প্রত্যক্ষ করেছি। এর ধারাবাহিকতায় তিনি জনগণের অধিকার, স”ন্ত্রাসবাদ, গণতন্ত্র, উদারতাবাদ, সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশের সরকার ও নাগরিকদের মধ্যে সংহতি ঘোষণা করেছেন।

ড. বেনজীর আহমেদ স”ন্ত্রাসী হাম/’লায় হ”তাহ/ত মার্কিন ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সহানুভূতিশীল। পরস্পরের মধ্যে সহভাগ করে নেওয়া এই মূল্যবোধের কারণে বাংলাদেশ পুলিশ, যুক্তরাষ্ট্র পুলিশ এবং জাতিসংঘ পুলিশের অনেকগুলো ক্ষেত্র রয়েছে, যার মাধ্যমে ভবিষ্যতে এই পক্ষগুলো টেকসই নিরাপত্তা এবং শান্তি বজায় রাখার বিষয়ে একসঙ্গে কাজ করবে। আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এবং আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ এই নীতির সূচনা করার জন্য যথার্থ যোগ্য ও সঠিক ব্যক্তি।
নিঃসন্দেহে, ড. আহমেদ তার কাজের পদ্ধতি, সৃজনশীল চিন্তা, দার্শনিক চিন্তা, পেশাদারি এবং দেশপ্রেমে অনন্য এবং অতুলনীয়। এটা প্রমাণিত যে, তিনি সব প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে চূড়ান্ত বিজয়ী। তিনি দেশের নাগরিকদের মন জয় করেছেন, প্রবাসী সম্প্রদায়ের হৃদয় জয় করেছেন এবং অবশেষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জয় করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ‘গ্রেট সিল’খ্যাত জাতীয় মনোগ্রামে একটি ল্যাটিন শব্দবন্ধ আছে : ‘ই প্লুরিবাস’। ইংরেজিতে তার অর্থ হলো, ‘আউট অব মেনি, ওয়ান’ আর বাংলায় যার অর্থ দাঁড়ায় ‘অনেকের মধ্যে এক’। ড. বেনজীর আহমেদ সেই ‘অনেকের মধ্যে এক’; এক উজ্জ্বল অনন্য ব্যক্তিত্ব।

দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গির পাশাপাশি পাশ্চাত্য উদারতাবাদ। বেনজির আহমেদের সমর্থন প্রশ্নাতীত কারণ তিনি কয়েক বছর ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করেছেন, পড়াশোনা করেছেন এবং বসবাস করেছেন। নিউইয়র্কে থাকাকালীন আমরা উদার মূল্যবোধ, সাংস্কৃতিক গতিশীলতা, বৈচিত্র্য এবং অন্যদের প্রতি শ্রদ্ধার প্রতি তার তীব্র আবেগ প্রত্যক্ষ করেছি। এর পর, তিনি জনগণের অধিকার, স”ন্ত্রাস দমন, গণতন্ত্র, উদারতাবাদ, সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের সরকার ও নাগরিকদের মধ্যে সংহতি ঘোষণা করেন।
ডঃ বেনজীর আহমেদ আমেরিকার সন্ত্রাসী হামলার শিকার এবং তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন। এই ভাগ করা মূল্যবোধের কারণে, বাংলাদেশ পুলিশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পুলিশ এবং জাতিসংঘের পুলিশের অনেকগুলি ক্ষেত্র রয়েছে যার মাধ্যমে এই দলগুলি ভবিষ্যতে টেকসই নিরাপত্তা এবং শান্তি বজায় রাখতে একত্রে কাজ করবে। আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এবং আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ এই নীতির সূচনা করার জন্য সঠিক ব্যক্তি।
নিঃসন্দেহে, ডক্টর আহমেদ তার কর্মশৈলী, সৃজনশীল চিন্তা, দার্শনিক চিন্তা, পেশাদারিত্ব এবং দেশপ্রেমে অনন্য এবং অতুলনীয়। এটা প্রমাণিত যে তিনি সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে চূড়ান্ত বিজয়ী। তিনি দেশের নাগরিকদের হৃদয়, প্রবাসীদের হৃদয় এবং অবশেষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জয় করেছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মনোগ্রাম, গ্রেট সীল নামে পরিচিত, একটি ল্যাটিন বাক্যাংশ রয়েছে: ‘ই প্লুরিবাস’। ইংরেজিতে এর অর্থ ‘আউট অব মেনি, ওয়ান’ আর বাংলায় যার অর্থ দাঁড়ায় ‘অনেকের মধ্যে এক’। ডঃ বেনজীর আহমেদ সেই ‘অনেকের মধ্যে একজন’; এক উজ্জ্বল অনন্য ব্যক্তিত্ব।
মো. মনজুরুল ইসলাম সুমন : বাংলাদেশের সুপ্রিমকোর্টের একজন প্র্যাকটিসিং আইনজীবী

উল্লেখ্য, বেনজির আহমেদ জাতিসংঘের সম্মেলনে যোগ দিয়ে সবকিছু ঠিকঠাক মতো সম্পন্ন করে ফিরে আসায় তার প্রতি একটি ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে। কারণ তার এই সফরের আগে তাকে নিয়ে লেখালেখি কম হয়নি, কারন তার ওপর দেওয়া হয়েছিল নিষেধাজ্ঞা। অন্য দিকে তিনি বেশ সুনামের সাথে তার দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পরপরই তাকে সরিয়ে পুলিশে দেওয়া হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net