পুলিশের আঘাতে নয়, বিএনপির রশীদের মৃত্যু হৃদরোগে: তথ্যমন্ত্রী

BPL 2023 লাইভ দেখুন এই লিংকে  rtnbd.net/live

পঞ্চগড়ে নিহত বিএনপি নেতা আব্দুর রশিদের মৃত্যু পুলিশের আঘাত নয়, হৃদরোগে হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, কর্মীদের সংঘাতের দিকে ঠেলে দেওয়া বিএনপি নেতাদের সমীচীন নয়।

সোমবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, পঞ্চগড়ে যে ব্যক্তি মারা গেছেন, তিনি বিএনপি করতেন এবং যেকোনো মৃত্যুই বেদনাদায়ক। সেজন্য আমি তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। তবে তার মৃত্যুটা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের কারণে নয়। তিনি হৃদরোগী ছিলেন, তার বাইপাস সার্জারি হয়েছিল। তিনি বিএনপির মিছিলে এসেছিলেন বটে কিন্তু পুলিশের সঙ্গে ঘটনা শুরু হওয়ার আগেই তিনি একটি মসজিদের সামনে অসুস্থ হয়ে মাটিতে পড়ে যান। পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, গতকাল (রোববার) ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এসেছে। তার মৃত্যু হার্ট এটাকেই হয়েছে তা বেরিয়ে এসেছে। তবে বিএনপি তাদের কর্মীদের সবসময় সংঘাতের দিকে ঠেলে দেয়, যা সমীচীন নয়। এই সাংঘর্ষিক রাজনীতি দেশের কোনো কল্যাণ বয়ে আনে না, তাদের দলের জন্যও এ পর্যন্ত কল্যাণ বয়ে আনেনি। এই সাংঘর্ষিক রাজনীতি বিএনপির পরিহার করা উচিত।

বিএনপি বারবার বলছে এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশ নেবে না-এ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার নির্বাচন আয়োজন করে না। নির্বাচন আয়োজন করে নির্বাচন কমিশন। যখন তফসিল ঘোষণা করা হয়, তখন সরকারের একজন ইউএনও, ওসি বদলি করার মতো ক্ষমতা থাকে না। আমরা চাই, দেশে অংশগ্রহণমূলক সুষ্ঠু, সুন্দর নির্বাচনের মাধ্যমে আমাদের গণতন্ত্র শক্তিশালী হোক। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য তারা গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করে না। তাদের জন্মটাই তো অগণতান্ত্রিকভাবে। তারা জানে, জনগণের কাছ থেকে তারা অনেক দূরে সরে গেছে। সেজন্য নির্বাচন নিয়ে তাদের এতো ভয়। তবে তাদের এই ভীতি দূর করার দায়িত্ব আওয়ামী লীগের বা সরকারের নয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, আমরা তো ২০১৪ সালেও চেয়েছিলাম বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক, তারা অংশ না নিয়ে নির্বাচন প্রতিহত করার পথ বেছে নিয়েছিল এবং ৫০০ কেন্দ্র জ্বালিয়ে দিয়েছিল। প্রিজাইডিং অফিসারকে পর্যন্ত হত্যা করেছিল, পুলিশ তো আছেই। ২০১৮ সালে তারা নির্বাচনে করবে কি করবে না সেই দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিল, শেষ মুহূর্তে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে এবং ফলাফল আপনারা জানেন, সর্বসাকুল্যে মহিলা আসনসহ ৭টি আসন।

সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই বিএনপি পূর্ণ শক্তি নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক এবং একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন হোক এবং সেই নির্বাচনের মাধ্যমে আগামীর সরকার গঠিত হোক। আমরা ওয়াক-ওভার চাই না, আমরা খেলে জিততে চাই। আমাদের টিম অনেক শক্তিশালী। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, তারা যদি নির্বাচনের মাঠে আসে তাদের আমরা ভালোভাবে পরাজিত করে ২০১৮ সালের মতো ধস নামানো বিজয় অর্জন করতে পারবো।

আগামীদিনের চ্যালেঞ্জ প্রশ্নে হাছান মাহমুদ বলেন, রাজনীতিতে সবসময় চ্যালেঞ্জ থাকে। রাজনীতির মাঠ হচ্ছে উজান ঠেলে, প্রতিবন্ধকতা উপড়ে ফেলে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া। আমাদের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ আছে, বিএনপির অপরাজনীতি একটা চ্যালেঞ্জ, বিএনপি নানা কুশীলবদের সঙ্গে নিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে, দেশীয়ভাবে যে অপতৎরতা চালাচ্ছে সেটি একটি চ্যালেঞ্জ। সব চ্যালেঞ্জ আমরা মোকাবিলা করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। তারা কী করতে চায় আমরা জানি এবং সেটি মোকাবিলা করতে কী করতে হবে সেটাও আমরা জানি।

‘বিএনপির গণমিছিল সরকার পতনের আন্দোলনের সূচনা’- বিএনপি নেতা ড. খন্দকার মোশাররফের এ বক্তব্যের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি তো রেগুলার ‘আন্দোলনের সূচনা’ করে। কিছুদিন পরপরই তারা আন্দোলনের সূচনা করে। আর তাদের গণমিছিলে লোক সমাগম আমরা দেখেছি, আপনারাও দেখেছেন, শুনেছেন। গুলিস্তানের মোড়ে দিনের ব্যস্ত সময় যখন লোকজন হেঁটে যায় তখন তাদের গণমিছিলের চেয়ে বেশি মানুষ হয়। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন হয়তো নিজে প্রশান্তি পাওয়ার জন্য কিংবা তাদের কর্মীদের একটু আশার আলো দেখানোর জন্য এ কথা বলছেন, এর বেশি কিছু নয়।
দলের শীর্ষ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় হাছান মাহমুদের মন্তব্য চাইলে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমার ওপর যে আস্থা রেখে দায়িত্ব দিয়েছেন, আমার কর্তব্য হচ্ছে সর্বোচ্চ নিষ্ঠার সঙ্গে সেই দায়িত্ব পালন করা। আগেও আমি সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছি। আমি গত দুই দশক ধরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন সদস্য হিসেবে সবসময় সাংবাদিকদের সহযোগিতা পেয়েছি, ভবিষ্যতের পথ চলাতেও সাংবাদিকদের সহযোগিতা চাই।

Check Also

হিরো আলমের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে নির্বাচন কর্মকর্তাকে সিইসির ফোন

বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলমের অভিযোগ খতিয়ে দেখার নির্দেশ …

14 comments

  1. পাগলে কিনা বলে ছাগলে কিনা খায়

  2. আহারে মিথ্যা বাদী

  3. এ একটা অসভ্য মিত্থুক

  4. কর্ম হোক যত যত জন্ম টা যদি ভালো হতো হাসা মাহমুদ এ-র।

  5. এটা ত পুরনো কেচ্ছা
    বিএনপির সময় ক্লিন হার্টে সেনাবাহিনী বলতো

  6. আসলে কি আপোনি এত মিধ্যা বলতে পারেন ভাবাও জায় না

  7. আমাদের বিশেষ্গ

  8. Mahfuzul Hassan Khan

    Ei haramir baccha

  9. M Sumon Islam Sumon

    সব কিছুই বেড়িয়ে আসবে একদিন
    ইনশাআল্লাহ

  10. Allah hediet korok

  11. মিঃ রফিক খান

    ডাঃ ,,,,,

  12. আপনের মিথ্যা কথা আগাতে জনগন সেস

  13. এক দিন আপনাদের এই দিন আসবে অপেক্ষা করুন।

  14. Manus how akhono januar thake gele hasan

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *