Breaking News

সাংবাদিকদের প্রশ্নে রেগে গিয়ে মন্ত্রী বললেন ‘চলে যান, গেট গোয়িং’

বাংলাদেশ বনাম আয়ারল্যান্ড লাইভ দেখু'ন এই লিংকে  rtnbd.net/live

ক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা রাশিয়ান জাহাজ ‘উরসা মেজর’নিয়ে প্রশ্ন করতেই নিজের ক্ষোভ ও বিরক্তি প্রকাশ করলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। প্রশ্ন করার আগে সাংবাদিকদের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ ও সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আরও পড়াশোনা করারও পরামর্শ দেন তিনি।

আজ বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের করণীয় বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। অনুষ্ঠান প্রায় আধাঘণ্টা বক্তব্য দেন তিনি।

এক পর্যায়ে একজন সাংবাদিক মন্ত্রীর প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘মাননীয় মন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা থাকায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের পণ্যবোঝাই রাশিয়ার জাহাজ ‘উরসা মেজর’ভারতে পণ্য খালাস না করেই দেশটির জলসীমা থেকে ফিরে গেছে। এতে রূপপুর প্রকল্পের কাজে কোনো ব্যাঘাত ঘটবে কি না এবং বিদ্যুৎকেন্দ্রটির মালামাল সরবরাহে কত দেরি হতে পারে?

জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ওই ব্যাপারে এখন কিছু বলবো না। এতো কথার মধ্যে তোমরা চলে গেলে রূপপুরে। আমি বুঝি না, তোমরা প্রফেশনাল না? আর ইউ প্রফেশনাল? লেট মি দিস অ্যানসার? ইউ আর প্রফেশনাল, লাইক মি আর্কিটেকচার। তোমরা তো প্রফেশনাল। তোমাদের রেগুলার প্রফেশনাল স্ট্যাডির ব্যবস্থা আছে, নাই।’

মন্ত্রীর এ বক্তব্যের জবাবে উপস্থিত কয়েকজন সাংবাদিক একযোগে বলে ওঠেন, ‘মাননীয় মন্ত্রী! আছে আছে।’

সাংবাদিকদের এমন জবাবের পর মন্ত্রী বলেন, ‘ঘোড়ার ডিম আছে তোমাদের। আমাদের একটা ইনস্টিটিউট আছে ওখান থেকে যদি সার্টিফিকেট না পাও, ইউ ক্যান নট প্র্যাকটিস। কারণ, ওটারও শুরুটা হয় আমার হাত দিয়ে। ওইগুলো করো আগে। বিকজ আমরা বাংলাদেশকে ওই জায়গায় নিয়ে যেতে চাই।’

এসময় মন্ত্রী আরও বলেন, ‘তোমার যদি একটা ব্যাকগ্রাউন্ড না থাকে, কালকে বলে দিলা তুমি সাংবাদিক। তুমি তো প্রফেশনালিজমের কিছু বোঝোই না। একটা প্রফেশন মাস্ট নো দ্যাট সাবজেক্ট, তার একটা ব্যাকগ্রাউন্ড থাকতে হবে। একটা কথা বলে দিলা যে কোনো জায়গা থেকে, তার মানে তোমাদের কোনো স্ট্যান্ডার্ড নেই।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘তোমার যদি প্রফেশনালি জ্ঞান-গরিমা থাকে, ন্যাচারালি তখন তুমি একভাবে বলবা, আর যদি না থাকে অন্যভাবে বলবা। আচ্ছা, এই সাবজেক্ট বাদ দিয়ে দাও। আমি সেজন্যই বলছি তোমরা এই সাবজেক্টের ওপর ধরো না কেন? এটা বাদ দিয়ে তুমি চলে গেলে অন্য জায়গায়। এটা নিয়ে আর কোনো কথাই হবে না। তুমি এখানে আসছ কী জন্য? তুমি রূপপুরের ব্যাপারে কথা বলতে আসছ? এখান থেকে তোমার প্রশ্ন বের করতে হবে, উত্তর নিতে হবে। সেটা হলে তুমি প্রোপার জিনিসটা করলা।’

তখন একজন সাংবাদিক বলেন, ‘আমরা যারা সাংবাদিকতায় কাজ করি তাদের সাবজেক্টের বাইরেও প্রশ্ন করতে হয়। আপনাকে আমরা পাই না, গত ৮-৯ মাসে আপনার প্রোগ্রামে আসিনি, এই প্রথম এলাম। তাও আবার জরুরি ভিত্তিতে আসতে বলেছেন। ১১টার প্রোগ্রাম, ১১টা ১০ মিনিটে আমাদের জানিয়েছেন। আমরা বড় জিনিস মনে করে চলে এসেছি। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে জনগণের জানার আগ্রহ আছে। জনসাধারণের ভিউ থেকে আমাদেরও অনেক কিছু জানতে হয়।’

তখন মন্ত্রী ধমকের সুরে ওই সাংবাদিককে বলেন, ‘আমি একটা কথা পরিষ্কার বলে যাই, ইউ লিসেন টু মি। আপনারা যদি না আসতে চান, চলে যান। গেট গোয়িং।’

Check Also

‘বিএনপির একটি অংশ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে আসবে’

আগামী নির্বাচনে বিএনপি না আসলেও নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের …

3 comments

  1. মথা নষ্ট

  2. M Sumon Islam Sumon

    স্বৈরাচারের আয়ু
    পৃথিবীর আয়ুর চেয়ে বেশি হবে না কিন্তু।

  3. Sala vot chor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *