বরিশালে ভোট টানতে কদর বিএনপির

IPL ের সকল খেলা  লাইভ দেখু'ন এই লিংকে  rtnbd.net/live

বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনের মাঠে নেই বিএনপি। তবে কদর বেড়েছে দলটির স্থানীয় নেতাদের। আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ—সব দলই বিএনপির নেতা-কর্মীদের ভোট পেতে চায়। এ জন্য কোনো কোনো দলের নেতারা বিএনপির নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগও শুরু করেছেন। পিছিয়ে নেই কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। অবশ্য বিএনপি নেতারা এমন যোগাযোগের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।আসন্ন বরিশাল সিটি নির্বাচনে ভোটার প্রায় ২ লাখ ৭৫ হাজার। নির্বাচনী বৈতরণি পার হতে এই ভোটাররাই মেয়র প্রার্থীদের ভরসা। এই ভোটারদের একটি অংশ বিএনপির নেতা-কর্মী-সমর্থক। এই ভোটব্যাংকের জন্যই ২০০৩ সালের সিটি নির্বাচনে বিএনপির মজিবর রহমান সরোয়ার এবং ২০১৩ সালে আহসান হাবিব কামাল বিসিসির মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন।সিটি নির্বাচন সামনে রেখে অনানুষ্ঠানিকভাবে বরিশাল নগরে নেমে পড়েছেন আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী। ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীকে ৮ মে সংবর্ধনা দেওয়ার ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে। একই সঙ্গে শুরু হয়েছে বিএনপির নেতা-কর্মী-সমর্থকদের সমর্থন পাওয়ার চেষ্টা। সূত্র বলেছে, এ জন্য দলটির নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন বিভিন্ন দলের নেতারা। আশা করছেন পাশে পাওয়ার।বিএনপির নেতা-কর্মীদের ভোট পাওয়ার আশা করছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য মীর আমিন উদ্দিন মোহন। তিনি বলেন, ‘বিএনপি ভোটে না গেলেও দলটির নেতা-কর্মী-সমর্থকেরা এই সমাজে বাস করেন। নগরের উন্নয়নে বিএনপির স্থানীয় নেতাদের ভোট নৌকার প্রার্থীই পাবেন। খোকন সেরনিয়াবাত (আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী) যে পরিবর্তনের ডাক দিয়েছেন, তাতে সাড়া দিয়ে আমাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন বিএনপির অনেক নেতা।’একই রকম আশা ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করিমের। তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে বিএনপি নেই বলে তাদের সমর্থকেরা তো ভোট না দিয়ে ঘরে বসে থাকবে না। বিএনপিসহ সব দলের সমর্থকেরাই হাতপাখায় ভোট দেবে। এমনকি আওয়ামী লীগের ভোটও আমি পাব বলে আশা করছি।’এদিকে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইকবাল হোসেন তাপসের মুখপাত্র এবং নগর জাপার আহ্বায়ক অধ্যক্ষ মহসীন উল ইসলাম হাবুল বলেন, আওয়ামী লীগের মেয়রের পাঁচ বছরের জুলুম, অত্যাচারে আর ফিরে যেতে চায় না নগরবাসী। তাই বিএনপি যেহেতু ভোটে আসছে না, সেহেতু ওই দলের সমর্থকেরা জাতীয়তাবাদী শক্তির কথা বিবেচনা করে লাঙ্গলের পক্ষেই থাকবেন।তবে নগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক জিয়া উদ্দিন সিকদার বলেন, ‘বিএনপির তো পছন্দের প্রার্থীই নাই, তাহলে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবে কাকে। আমি বিশ্বাস করি না বিএনপির কোনো নেতার সঙ্গে মেয়র প্রার্থীদের যোগাযোগ আছে।’নতুন বরিশাল গড়ার স্লোগানের কারণে বিএনপি, জাপাসহ সব দলের সমর্থন থাকার আশা করছেন নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আফজালুল করিম। তিনি বলেন, ‘যারা সিটির নাগরিক, নগর সুবিধা যারা পাবে, তাদের সবার কাছেই ভোট চাই। এ ক্ষেত্রে বিএনপি-জামায়াত বলে কিছু নেই।’বিএনপির কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান বলেন, তাঁর দল সিটি নির্বাচনে অংশ নেবে না। এরপরও কেউ কেউ বিএনপির লেবাস গায়ে জড়িয়ে সুযোগ নিতে চান। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ হয়তো বিএনপির স্থানীয় কারও কারও ওপর টোপ ফেলেছে। কিন্তু ওই টোপে পড়ে বিএনপির নেতা-কর্মীরা আওয়ামী লীগকে ভোট দেবেন, তা বিশ্বাসযোগ্য নয়। ইসলামি কোনো দল কিংবা জাপার সঙ্গেও বিএনপির রাজনৈতিক আদর্শের মিল নেই। amazing)

Check Also

গাজীপুর সিটি নির্বাচন: লাঙলের প্রার্থীর ইশতেহার ঘোষণা

গাজীপুর সিটি করপোরেশনকে একটি পরিকল্পিত নগর হিসাবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করে ইশতেহার ঘোষণা করেছেন সিটি …