নির্বাচন সামনে রেখে অস্ত্র-গুলি সাউন্ড গ্রেনেড কিনছে পুলিশ

IPL ের সকল খেলা  লাইভ দেখু'ন এই লিংকে  rtnbd.net/live

পুলিশের জন্য শটগান, কার্তুজ, সাউন্ড গ্রেনেড, কালার স্মোক গ্রেনেড, কাঁদানে গ্যাসের শেলসহ অনেক সরঞ্জাম কেনা হচ্ছে। এর সবই বিদেশ থেকে আমদানি করা হচ্ছে। কিছু ইতিমধ্যে দেশে এসেছে।সবশেষ চারটি পৃথক দরপত্রে প্রায় ৩০ কোটি টাকার ২ লাখ ৩৪ হাজার ৮০০ কাঁদানে গ্যাসের শেল এবং সাউন্ড গ্রেনেড আমদানির ব্যাপারে অনাপত্তি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পুলিশের জন্য কেনা এসব মালপত্র ছাড় করতে কাস্টমসসহ সংশ্লিষ্টদের চিঠি দেওয়া হয়েছে।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আর ছয়-সাত মাস পর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচন সামনে রেখে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশের জন্য এসব উপকরণ কেনা হচ্ছে। তবে পুলিশ সদর দপ্তর বলেছে, এটি পুলিশের রুটিন কেনাকাটা। বিশেষ কিছু নয়, স্বাভাবিক আমদানি।জাতীয় নির্বাচন ঘিরে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত হতে শুরু করেছে। সামনে এই উত্তাপ আরও বাড়বে। সূত্রগুলো বলেছে, এই অবস্থায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক রাখতে পুলিশ বাহিনীও প্রস্তুতি নিচ্ছে। এর অংশ হিসেবে শটগান, সাউন্ড গ্রেনেড ও কাঁদানে গ্যাসের শেল আমদানি করা হচ্ছে। সবশেষ ১১ মে পুলিশের পক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এসব আমদানির পৃথক চারটি অনাপত্তিপত্র দেয়। এর একটিতে ১ কোটি ৯২ লাখ ৫৬ হাজার টাকায় ১০ হাজার কালার স্মোক গ্রেনেড কেনার কথা জানানো হয়। এগুলো সরবরাহ করছে রাজধানীর দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকার কমার্স ক্যাভ নামের প্রতিষ্ঠান। আরেকটি অনাপত্তিপত্রে ৫ কোটি ১৮ লাখ ৯৪ হাজার টাকায় ২০ শতাংশ ভেরিয়েশনের ২৮ হাজার ৫০০ সাউন্ড গ্রেনেড কেনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলো সরবরাহ করবে বারিধারার তাসনীম-ই-ফেরদাউস স্প্রিং স্পার্ক নামের প্রতিষ্ঠান। অপর দুটি অনাপত্তিপত্রে ১ লাখ ৯৬ হাজার কাঁদানে গ্যাসের শেল কেনার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। এর একটিতে রয়েছে ১২ কোটি ৪৭ লাখ ৬২ হাজার টাকায় ১ লাখ ১০ হাজার কাঁদানে গ্যাসের শেল। অন্যটিতে ১০ কোটি ৪৫ লাখ ৩৪ হাজার টাকায় ৮৬ হাজার কাঁদানে গ্যাসের শেল কেনার কথা উল্লেখ রয়েছে। এসব কাঁদানে গ্যাসের শেল সরবরাহ করবে দিলকুশার কমার্স ক্যাভ।এসব উপকরণ খালাসসহ প্রয়োজনীয় সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে আমদানি-রপ্তানি প্রধান নিয়ন্ত্রক, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান, জননিরাপত্তাসচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ও ঢাকা কাস্টম হাউসের কমিশনারকে চিঠি দিয়েছে।জানতে চাইলে ঢাকা কাস্টম হাউসের কমিশনার নূরুল হুদা আজাদ আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের জন্য আর্মসসহ বিভিন্ন উপকরণ আসছে। শটগানের একটি চালান আসবে বলে ইতিমধ্যে জানানো হয়েছে এবং একটি নমুনা আমার হাতে এসেছে। আরও কিছু উপকরণের চিঠি আসছে।’ তিনি বলেন, ‘পুলিশের যেকোনো পণ্য এলেই আমরা শুল্ক-কর কেটে রেখে দ্রুত খালাস করে দিই। সেই প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগেও এভাবে আমদানি হয়েছে।’সূত্র বলেছে, ৮ হাজার সেমি অটো রাইফেল, শটগানের ১৫ লাখ কার্তুজ, ৬ লাখ ব্ল্যাংক কার্তুজ, ২ লাখ কাঁদানে গ্যাসের শেল, ৩৯ হাজার সাউন্ড গ্রেনেড, সার্ভিলেন্স যন্ত্রপাতি এবং স্পাই ক্যামেরা কেনার জন্য পৃথক দরপত্র দেওয়া হয়। এর বাইরে ২৪ হাজার সাউন্ড গ্রেনেড এবং ১৫ হাজার মাল্টি-ইম্প্যাক্ট কাঁদানে গ্যাসের শেল কেনার দরপত্র আহ্বান করা হয়।পুলিশ সদর দপ্তরের মিডিয়া সেলের প্রধান ও সহকারী মহাপরিদর্শক মনজুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, এ ধরনের কেনাকাটা পুলিশের রুটিন কেনাকাটা। কী পরিমাণ মালপত্র কেনা হচ্ছে, তার সঠিক হিসাব তাঁর জানা নেই। তবে বেশ কিছু উপকরণ আমদানির প্রক্রিয়ায় রয়েছে। এগুলো বিশেষ কিছু নয়, স্বাভাবিক আমদানি।অবশ্য সাবেক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক আজকের পত্রিকাকে বলেন, সামনে নির্বাচন আসছে। এ সময় অনেকে নিয়মকানুন মানতে চায় না। বাড়াবাড়ি করে, আক্রমণ করে, সম্পদের ক্ষতি করে। তখন পুলিশকেও আত্মরক্ষা করতে হয়। তিনি বলেন, ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতাকে সতর্ক করা ও ধ্বংসাত্মক কাজ থেকে নিবৃত্ত রাখা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও জানমালের সুরক্ষার জন্যই পুলিশ আগাম কিছু প্রস্তুতি এবং কৌশল নেয়; বিশেষ করে শটগান, সাউন্ড গ্রেনেড, কাঁদানে গ্যাসের শেল, জলকামান ইত্যাদির পর্যাপ্ত মজুত রাখতে হয়। আমি মনে করি, এসব প্রস্তুতি থাকা উচিত।’ awesome)

Check Also

গাজীপুর সিটি নির্বাচন: লাঙলের প্রার্থীর ইশতেহার ঘোষণা

গাজীপুর সিটি করপোরেশনকে একটি পরিকল্পিত নগর হিসাবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করে ইশতেহার ঘোষণা করেছেন সিটি …