মায়ের চেয়ে ৩ বছরের বড় বড়ছেলে,আরেক ছেলে মায়ের চেয়ে মাত্র এক বছরের ছোট

মায়ের চেয়ে ৩ বছরের বড় বড়ছেলে,আরেক ছেলে মায়ের চেয়ে মাত্র এক বছরের ছোট

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের পূর্ব দামোদরপুরের গ্রামের মৃত গোলজার হোসেন চৌকিদারের স্ত্রী জোবেদা বেগম। তার প্রকৃত বয়স নব্বইয়ের কাছাকাছি। কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) তার যে জন্মতারিখ লেখা হয়েছে তাতে দেখা গেছে তিনি তার এক ছেলের চেয়েও তিন বছরের ছোট। বয়সের এই ভুলে বয়স্কভাতার কার্ডও বাতিল হয়েছে তার। আরেক ছেলেকে মায়ের চেয়ে মাত্র এক বছরের ছোট দেখানো হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গোলজার হোসেন চৌকিদার কয়েক বছর আগে মারা যান। এরপর তার নামের বয়স্কভাতার কার্ডটি বরাদ্দ পান তার স্ত্রী জোবেদা বেগম। পাঁচ বছর ভাতার টাকা উত্তোলনও করেন। কিন্তু চলতি বছর অনলাইন ডাটাবেইজ করার সময় এনআইডিতে বয়স কম থাকায় বাতিল হয়ে যায় তার ভাতার কার্ডটি। সেই থেকে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটছে জোবেদা বেগমের।

জাতীয় পরিচয়পত্রে বৃদ্ধা জোবেদা বেগমের জন্মতারিখ ১০ মার্চ, ১৯৬৫ দেখানো হয়েছে। আর তার বড় ছেলে আব্দুল জোব্বারের জন্মতারিখ দেখানো হয়েছে ৫ এপ্রিল, ১৯৬২। সে অনুযায়ী মায়ের চেয়ে ছেলে প্রায় তিন বছরের বড়। এছাড়া আরেক ছেলে জয়নাল মিয়ার জন্মতারিখ দেখানো হয়েছে ১৩ জুন, ১৯৬৬। সে অনুযায়ী মায়ের চেয়ে ছেলে জয়নাল এক বছর তিন মাসের ছোট।

আব্দুল জোব্বার বলেন, ‘আমারতো বয়স ৬০ হইছে। মার বয়স ৯০ হলেও কার্ডে ভুল করে ৫৬ বানাইছে। এটা কোনো কথা হলো? তার জন্যে মার ভাতার কার্ডটাও বাতিল হইছে।’

এ নিয়ে বৃদ্ধা জোবেদা বেগম জাগো নিউজকে বলেন, ‘মোর বয়স প্রায় একশ হবার নাগছে (১০০ হওয়ার কাছাকাছি)। কখন মরম (মরবো) তার ঠিক নাই। মোর কার্ডখেন ঠিক করি দাও। মুই (আমি) আর কিচ্চু চাম (চাই) না।’

জানতে চাইলে সাদুল্লাপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা লুৎফর রহমান বলেন, ‘২০০৮ সালের ডাটা এন্ট্রিতে এমনটা হতে পারে। তবে সংশোধনীর আবেদন করলে বয়স ঠিক করা যাবে।’

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মানিক রায় বলেন, এনআইডি সংশোধন হলে পুনরায় ওই বৃদ্ধার ভাতার কার্ড ইস্যু করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net