অবিলম্বে ঈমান বিধ্বংসী সিলেবাস বাতিল করতে হবে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ

BPL 2023 লাইভ দেখুন এই লিংকে  rtnbd.net/live

ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির সমাজ বিজ্ঞান বই এ নগ্ন ছবি, মুর্তিসহ ডারউইনের বিবর্তনবাদ ও হিন্দুত্ববাদ সংযোজন করে মুসলিম সন্তানদেরকে নাস্তিক বানানোর চক্রান্ত চলছে । এর দ্বারা প্রমাণ হয় আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার রন্ধ্রে রন্ধ্রে নাস্তিক্যবাদী একটি মহল ঘাপটি মেরে বসে আছে । ৯২ ভাগ মুসলমানদের বাংলাদেশের পাঠ্য পুস্তকে মন্দিরের ছবি থাকতে পারেনা। বাংলাদেশের ইসলামপ্রিয় তাওহিদী জনতা ইসলাম বিরোধী এই সিলেবাস কিছুতেই মেনে নিবেনা। অবিলম্বে ঈমান বিধ্বংসি সিলেবাস বাতিল করতে হবে। অন্যথায় গণ আন্দোলন সৃষ্টি হবে। বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের উদ্যোগে আজ বাদ জুমা কামরাঙ্গীরচর নূরিয়া মাদরাসা ময়দানে বিক্ষোভপূর্ব সমাবেশে নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন।

নেতৃবৃন্দ কোরআন হাদীস বিরোধী বিতর্কিত সিলেবাস বাতিলের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন। মিছিলের নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজি। মিছিল শেষে বিক্ষোভ সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের নায়েবে আমি মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন, প্রচার সম্পাদক মাওলানা সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী। সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজি বলেন, বিতর্কিত সিলেবাসের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে নাস্তিক ও পৌত্তলিক বানানোর ষড়যন্ত্র এদেশের তাওহীদ জনতা মেনে নিবেনা। সরকার যদি দাবি মানতে ব্যর্থ হয় তাহলে আন্দোলন থামবে না এবং জনগন সঠিক সময়ে সঠিক জবাব দিবে। মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, ৯২ ভাগ মুসলমান এ দেশের পাঠ্য পুস্তকে ডারউইনের মতবাদ দেখতে চায়না । কতিপয় নাস্তিক ব্যতীত সমগ্র সাচ্চা মুসলমান ও গোটা জাতি বিশ্বাস করে আমরা আদম সন্তান, বানরের প্রজাতি নয়। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা মানুষ সৃষ্টির ইতিহাস বর্ণনা করেছেন । আদম (আঃ) ও হাওয়া (আঃ) থেকে মানুষের সূচনা । এ বিশ্বাস না থাকলে ঈমানহারা হয়ে যাবে ।

পাঠ্য পুস্তক থেকে ডারউইনের বানর থিওরি নাস্তিক্যবাদ ও হিন্দুত্ববাদি পাঠসমূহ বাদ দিয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের আক্বীদা বিশ্বাস ও ধর্মীয় নীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ পাঠ্যবই প্রণয়নের জোর দাবি জানান তিনি মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন বলেন, ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির সমাজ বিজ্ঞান বই এ নগ্ন ছবি, মুর্তিসহ ডারউইনের বিবর্তনবাদ ও হিন্দুত্ববাদ সংযোজন করে মুসলিম সন্তানদেরকে নাস্তিক বানানোর চক্রান্ত চলছে । এর দ্বারা প্রমাণ হয় আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার রন্ধ্রে রন্ধ্রে নাস্তিক্যবাদী একটি মহল ঘাপটি মেরে বসে আছে । অবিলম্বে ঈমান বিধ্বংসি সিলেবাস বাতিল করতে হবে। অন্যথায় গণ আন্দোলন সৃষ্টি হবে। আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ঃ চট্টগ্রামের জামিয়া মাদানিয়া শুলকবহর মাদরাসার মাহফিলে আলেম-উলামাদের গ্রেফতার এবং পাঠ্যপুস্তকে অনৈসলামিক বিষয় প্রবেশ ইসলামের বিরুদ্ধে বড় ষড়যন্ত্রের অংশ উল্লেখ করে আমীরে হেফাজত আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী হাফিজাহুল্লাহ বলেন,কিছু নামধারী মুসলিম আছে যারা ইসলামকে কিভাবে দুনিয়া বিতাড়িত করা যায় সেই ষড়যন্ত্রে সর্বদা লিপ্ত। তাদের দ্বারা ইসলাম চতুর্মুখি ষড়যন্ত্রের শিকার। বর্তমান সময়ে এই সমস্ত নামধারী মুসলিমদেরকে চিহ্নিত করতে, তাদের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে অবগত হতে এবং তাদের ষড়যন্ত্রগুলো বুঝে সেগুলো কিভাবে প্রতিহত করতে হবে তার পদ্ধতি জানতে দ্বীনি মাহফিল সমূহ অতিব জরুরি হয়ে পড়েছে। আল্লামা বাবুনগরী বলেন, বর্তমানে নতুন আরেক ষড়যন্ত্র প্রকাশ পেয়েছে। “আমরা নাকি এক সময় বানর ছিলাম সেখান থেকে মানুষ হয়েছি ( ডারউইনের বিবর্তনবাদ থিউরি)” এমন অযৌক্তিক মিথ্যা কথাবার্তা সরকারি বিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকে এমনকি সরকারি আলিয়া মাদরাসা পাঠ্যপুস্তকেও ঢুকিয়ে আমাদের মুসলিম বাচ্চাদের শিখানো হচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে ঈমান বিধ্বংসী কথাগুলো। পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন করে, আলেম-উলামা গ্রেফতার করে এবং এসব অনৈতিক কর্মকান্ডের জন্য মুসলমানদের মাঝে সৃষ্ট ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশকে পুঁজি করে সরকার পশ্চিমাদের একথা বুঝাতে চায় যে, এদের দমানো সম্ভব নয়। এদেরকে দমাতে হলে আওয়ামিলীগকে ক্ষমতায় রাখতে হবে। সুতরাং এসব ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।জাতীয় লেখক পরিষদ ঃ ‘জাতীয় লেখক পরিষদের উদ্যোগের ৩য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত লেখক সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ শিক্ষা সিলেবাসে ইসলাম বিরোধী শিক্ষা সংযুক্ত এবং নাস্তিক্যবাদী বিষয় চালু করায় তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে ধর্মীয় মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের আহবান জানিয়েছেন। সম্মেলনে আলেম মুক্তিযোদ্ধা মাওলানা আব্দুল্লাহ বিন সাঈদ জালালাবাদী ধর্মীয় মূল্যবোধ ও স্বাধীনতার চেতনার আলোকে সিলেবাস ও পাঠ্যপুস্তক প্রনয়ণের আহবান জানিয়েছেন। সম্মেলনে ৩ জন গুণী লেখককে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। তারা হলেন প্রবীণ আলেমে দীন মাওলানা আব্দুল্লাহ বিন সাঈদ জালালাবাদি, শিক্ষাবিদ মাওলানা মুহাম্মদ সালমান ও লেখক ও সাংবাদিক মাওলানা আবদুর রহীম ইসলামাবাদি। পরিষদের সভাপতি ড. মাওলানা শহিদুল ইসলাম ফারুকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন, দৈনিক নয়া দিগন্তের সহসম্পাদক মাওলানা লিয়াকত আলী, মাওলানা যুলফিকার আলী নদভী, মাসিক মদীনা সম্পাদক ড. আহমদ বদরুদ্দীন খান, মাসিক আদর্শ নারীর সম্পাদক মুফতি আবুল হাসান শামসাবাদী, জাতীয় ইমাম পরিষদ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মুফতি আব্দুল্লাহ ইয়াহইয়া, ড. ইসমাইল হোসাইন, মাসিক রহমত সম্পাদক মাওলানা মনযুর আহমদ, মুফতি ইমরানুল বারী সিরাজী, মাওলানা আব্দুল্লাহ আল ফারুক, মাওলানা শরাফত হোসাইন নদভী, দৈনিক যুগান্তরের সহসম্পাদক তোফায়েল গাজালী, মাওলানা কামরুল হাসান রাহমানী, জাতীয় লেখক পরিষদের সিনিয়র সহসভাপতি সৈয়দ শামছুল হুদা, মুফতি শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী,ড. মুফতি আল আমীন,মাওলানা ওয়ালিউল্লাহ আরমান, সাধারণ সম্পাদক আবদুল গাফফার। উপস্থাপনায় ছিলেন মাইনুদ্দীন ওয়াদুদ ও মাহমুদ হাসান।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঃ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় প্রচার ও দাওয়াহ বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম বলেছেন, ইসলামবিরোধী সিলেবাসে আমাদের প্রজন্মকে নাস্তিক বানানোর ষড়যন্ত্র রুখে দাঁড়ানো সকলের ঈমানী দায়িত্ব। তিনি বলেন, ইসলামবিরোধী বিতর্কিত শিক্ষা সিলেবাস অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। বিরানব্বই ভাগ মুসলমানের চিন্তা চেতনা অনুযায়ি শিক্ষা সিলেবাস প্রণয়ন করতে হবে। আজ শুক্রবার কুমিল্লা উত্তর জেলার মুরাদনগর উপজেলার ছালিয়াকান্দি ইউনিয়ন শাখা আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম বিভাগ) মুফতী দেলাওয়ার হোসাইন সাকী। বক্তব্য রাখেন মাস্টার মফিজুল ইসলাম, যুবনেতা মাওলানা শুআইব হুসাইন, হাজী আবুন হানিফ মেম্বার। সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়ন সভাপতি মুফতী আব্দুল ওয়াদুদ নাজিমী। শ্রীনগর ইসলাহুল উম্মাহ পরিষদ ঃ মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরের ইসলাহুল উম্মাহ পরিষদের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার রাতে আলমপুর হোসেন আলী ময়দানে তাফসীরুল কোরআনা মাহফিলে মধুপুর পীর সাহেব মাওলানা আব্দুল হামিদ ইসলাম বিরোধী নাস্তিক্যবাদী শিক্ষা সিলেবাস অবিলম্বে বাতিল করে সকলস্তরে ধর্মীয় শিক্ষা বাধ্যতামূল করার জোর দাবি জানান। মাওলানা ইউনুস কাসেমীর সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য রাখেন, ভারতের দিল্লীর কুবা মসজিদের খতিব মুফতি দেলোওয়ার হুসাইন, আল্লামা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী, মাওলানা মেরাজুল হক মাহজারী। বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতিঃ বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা কাজী আবু হোরায়রা এক বিবৃতিতে বলেছেন. প্রধানমন্ত্রী মডেল মসজিদ উদ্বোধনের সময় বলেছেন আওয়ামী লীগ ইসলামের সেবক। এটাতো খুবই খুশির কথা। তাহলে শিক্ষা কারিকুলামে ইসলাম বিরোধী সিলেবাস করলো কারা? ইসলাম বিদ্বেষীদের দ্বারা ইসলামী শিক্ষার সিলেবাস করা কি ইসলামের সেবকের কাজ হতে পারে? সুতরাং নাস্তিক্যবাদী সিলেবাস রহিত করে ইসলামের সেবক বলে প্রমাণ করুন। তা না করলে ঐ দাবী মিথ্যা বলে গণ্য হবে। আমাদের প্রশ্ন দীর্ঘদিন যাবত দেশের সর্বস্তরের আলেমগণ দাবি জানিয়ে আসছেন ইসলাম বিরোধী কারিকুলাম ও পুস্তক বাতিল করে ইসলামী বিশেষজ্ঞদের দ্বারা কারিকুলাম ও পুস্তক প্রণয়নের। কিন্তু বিরানব্বই ভাগ মুসলমানের দেশের সরকার মনে হচ্ছে তা শুনতে পাচ্ছেন না।
তাতে মনে হয় সরকারের ইচ্ছা বা সন্মতিতে এসব নাস্তিক ও রাম বাবুরা এসব করেছে। সিলেবাসে নাস্তিক্যবাদ শিক্ষা দিয়ে আর মডেল মসজিদের সংখ্যা বৃদ্ধি হলেও প্রকৃত মুসলমান ও মুসল্লি তৈরী হবে না। আমাদের বক্তব্য হল সরকার যদি এটা না করেন তাহলে এটা তাদের জন্য আগামী দিন গুলোতে বুমেরাং হয়ে দাঁড়াবে। কারণ দেশের পাঁচ লক্ষাধিক মসজিদে আলেমরা ঈমানী দায়িত্ব পালনের তাগিদে এ ব্যাপারে মুসলমানদের তা জানাতে থাকবে ও প্রতিবাদ করতে থাকবে।ইসলামী ঐক্য জোট ঃ ইসলামী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব আজ শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেন, মানুষ হযরত আদম (আ.) এর সন্তান। এখন যারা শিক্ষা সিলেবাসের মাধ্যমে মানুষকে বানরের সন্তান বানাতে চায় তাদেরকে তাদের রুখে দিতে হবে। মুসলমানের সন্তানদের ঈমান আক্বিদা ও দেশপ্রেম ধ্বংসের জন্য শিক্ষানীতি প্রণয়নের দায়িত্ব ইসলামবিরোধী শক্তির হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। মুসলমানের সন্তানদের নাস্তিক ও হিন্দুত্ববাদী মানসিকতা তৈরি করার জন্য শিক্ষানীতি প্রণয়ন করেছে। শিক্ষা সিলেবাসের পড়তে পড়তে নাস্তিক্যবাদ ও হিন্দুত্ববাদ ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, মাদরাসার স্বকীয়তা বজায় রেখে পৃথক সিলেবাসে মাদরাসার বই ছাপাতে হবে।কর্মসূচি ঃইসলামী ঐক্যজোট (আইওজে) ঃ ইসলাম বিরোধী শিক্ষা সিলেবাস বাতিল, দুর্নীতির মূলোৎপাটন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ ও দেশে ইসলামী হুকুমত কায়েমের দাবিতে আগামীকাল শনিবার বাদ যোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয মসজিদের উত্তর গেইটে ইসলামী ঐক্যজোটের উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল বের করা হবে। মিছিলে নেতৃত্ব দেবেন দলের চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী।

Check Also

মাগুরা মার্কা নির্বাচন আগামীকাল হবে না : ওবায়দুল কাদের

৫ আসনে উপ-নির্বাচনে প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মাগুরা মার্কা ফি স্টাইলে …

5 comments

  1. মুফতি আমির হামজা একটা ওয়াজে বলচিল দিরে দেশ থেকে ইসলাম তুলে নিবে আজ সে দেখতে পারচি আল্লাহ সবাইকে বুজার তপিক দান করুক আমিন

  2. Md. Rudro Nir Suhag

    সবকিছুই উল্টা শিক্ষা ব্যবস্তা ঠিক রেখে কি করবে। মালায়ন এর রামায়ণ কাহিনীই পড়াতে হবে ছেলেমেয়েদের

  3. অবিলম্বে এই বদমাইশ শিক্ষা মন্ত্রি কে বরখাস্ত করার আন্দলন শুরু করতে হবে। এর বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্ম কে কটাক্ষ করার জন্য মামলা করা উচিৎ।

  4. সহমত

  5. হিন্দুত্ব বাদ প্রতিষ্ঠা করাই তাদের লক্ষ্য,৯০%মুসলমানদের দেশে যে বই ছাপিয়েছে এটা জাতির জন্য লজ্জাজনক।

    একটি জাতির মেরুদন্ড হচ্ছে শিক্ষা ব্যবস্থা ,,
    ওরা সেই শিক্ষা ব্যবস্থাটাকেই ধ্বংস করে দিচ্ছে
    ওরা প্রতিটি শ্রেণীতেই ভিত্তিহীন মিথ্যা গল্প কাহিনী দিয়ে এবং ডারউইনের বিবর্তনবাদ পাঠ্য বইতে সংযোজন করে আমাদেরকে ধ্বংস করে দিচ্ছে,,